শ্রীদেবীর একটু খানি চাউনি!

বৃহস্পতিবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৮ ০১:১৫:৪৩ পূর্বাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  

বলিউডের প্রথম সুপারস্টার শ্রীদেবীর সঙ্গে নিজের সম্পর্কের অভিজ্ঞতা নিয়ে সম্প্রতি মুখ খুলেছেন তাঁর ব্যক্তিগত মেকাপ আটিস্ট রাজেশ পাতিল। এই রাজেশ ছিলেন তাঁর ছায়াসঙ্গি। শেষ দিনটিতেও বধুর বেশে শ্রীদেবীকে তিনি সাজিয়ে ছিলেন।

রিডার::অতিশ দেব

‘তখনও শ্রীদেবী আমার কাছে বি-টাউন তারকা। কাছের কেউ হয়ে ওঠেননি। ওঁর ছবি দেখলে বা ওঁকে সামনাসামনি দেখলে আর পাঁচটা পুরুষের মতো আমার বুকটাও ধকধক করে উঠত।’

‘১৯৮৫ সাল। ‘নাগিনা’র সেটে শ্রীদেবীকে প্রথম বার দেখলাম। ওই বড় টেবিল ফ্যানের হাওয়াতে যখন ওঁর চুলগুলো উড়ত, খেলা করত হাওয়ায়, সত্যি বলতেকী কোথায় যে হারিয়ে যেতাম.. তবে ওঁর ব্যক্তিত্বটাই এমন ছিল, ড্যাব ড্যাব করে মুখের দিকে বেশিক্ষণ চেয়ে থাকতেও ভয় হত। তাতে কী? মেকআপ রুমের এত আয়না, আড়ালে ঠিকই দেখে ফেলতাম।’

‘আমি তখন এক সার দিয়ে সেটে সহ অভিনেতা-অভিনেত্রীদের একের পর এক মেকআপ করে যেতাম। যেটা করতে ‘নাগিনা’র সেটে যাওয়া। তখনও শ্রীদেবী কিন্তু নিজের মেকআপ নিজেই করতেন। এই কথাটা হয়তো অনেকেরই অজানা। শ্রীদেবী নিজে কিন্তু একজন বড়মাপের মেকআপ আর্টিস্ট। ঘণ্টার পর ঘণ্টা নিখুঁতভাবে নিজেকে ফুটিয়ে তুলতেন শ্রীদেবী। আর সে রকমই একজন জাঁদরেল মেকআপ আর্টিস্টকে মেকআপ করানোটা যতটা চাপের, ততটাই চ্যালেঞ্জিং। তার পর হাজার একটা ফিল্মের সেটে, কয়েকশো ইভেন্টে শ্রীদেবীকে দেখেছি। একদিনের জন্যও সাহস করে কথা বলতে পারিনি। দেখতাম আর কী রকম যে বোবা হয়ে যেতাম। তবে এই কয়েক দিনে বিনা আলাপেই শ্রীবেদী যে কখন আমার কাছে শ্রীদেবীজি হয়ে উঠলেন বুঝতেই পারিনি।’

‘সুযোগটা পেয়েছিলাম প্রায় আট বছর বাদে। ‘আর্মি’র সেটে। শাহরুখ খানের মেকআপের জন্য প্রোডাকশন থেকে আমাকে ডেকেছিল। শাহরুখ তখন অভিনেতা। আর শ্রীদেবী তো সুপারস্টার। আমার সঙ্গে শ্রীদেবীজির প্রথম আলাপটাও করিয়ে দিয়েছিলেন শাহরুখ স্যার। এখনও মনে আছে উনি কিছুটা মজার ছলেই বলেছিলেন, ‘শ্রী, রাজেশ কিন্তু আপনার বড় ধাঁচের ভক্ত । আজকাল দারুণ মেকাপ করছে। কিন্তু আপনার সামনে দাঁড়াতে সাহস কুলাচ্ছ না।’

‘আমি তো কোথায় পালাব, সেই রাস্তা খুঁজে বেড়াচ্ছি। মানে, শাহরুখকে প্রায়ই শ্রীদেবীর কথা বলতাম। ঘ্যানঘ্যানও করতাম ওঁর কানের কাছে। কিন্তু উনি যে এমন কান্ড ঘটিয়ে বসবেন সে আর কে জানত? শ্রী হাসতে হাসতেই আমার দিকে তাকালেন। ব্যাস! তখন আর আমায় পায় কে! আমি তখন রাজা। বাড়িতে ঢুকতে না ঢুকতেই আমিই তো শাহেন শাহ।’

 

শ্রীদেবীর সঙ্গে রাজেশ পাটেল

‘এভাবেই টিমটিম করে কেটে যাচ্ছিল দিনকাল। ফিল্মের কাজ, মেগা সিরিয়াল, ইভেন্টের কাজ, বিয়ে, টুকটাক কাজও আসছিল। কিন্তু পাকাপাকিভাবে কাজ ধরছিলাম না। কারণ আমাদের লাইনে পাকাপাকিভাবে স্থায়ী কাজ করাটা এক প্রকার বোকামি। তাতে রোজগারে ভাঁটা পড়ে, রোজগারের রাস্তাগুলোও বন্ধ হয়ে যাওয়ার হাজার একটা সম্ভাবনা থাকে। তাই ওই রাস্তায় হাঁটিনি।’

‘হঠাৎই একদিন একটা ফোন এলো। ’৯৬ সালের কথা বলছি। শ্রী’র অফিস থেকে এসেছিল ফোনটি। ওঁনার ম্যানেজার ফোনে কাজের কথা বলছিলেন। কী কাজ? না, শ্রী’র ব্যক্তিগত মেকআপ আর্টিস্টের কাজ করতে হবে। ওই তখন থেকেই শ্রীদেবীজি আমার ‘ম্যাডাম’ হয়ে উঠলেন। যেখানেই ম্যাডাম যাবেন, যখনই ম্যাডামের কোনও অনুষ্ঠান থাকবে, আমার কাছে ফোন চলে আসত। যে কাজই থাকুক না কেন, সব ফেলে ছুটে যেতাম।’

‘তবে তাঁর মেকআপ করলে কী হবে? এক দিনের জন্যও মজা করে ম্যাডামের সঙ্গে কথা বলব, মাথাতেও আসত না। সাজতে সাজতে উনি দু-কথা ইয়ার্কির ছলে বলে ফেললেও, আমি মুখ দিয়ে কিছু বেরুতো না, ভাই! আসলে ম্যাডামের ব্যক্তিত্বটাই এমন ছিল যে কথা বলতেই সাহস হত না।এটাকে আপনি ওনার গ্রেস বলতেই পারেন। ’

‘ইয়ার্কি-ঠাট্টা তো অনেক দূরের কথা! আগেই বললাম, ম্যাডাম নিজেই মেকআপ দুর্দান্ত করতেন। মেকআপ এক চুল এ দিক ও দিক হলেই আমাকে বলতেন, ‘রাজেশজি এই জায়গাটা। রাজেশজি এখানটা একটু।’

‘তবে আমাদের প্রতি উনি খুব যত্নশীল ছিলেন। বাইরে যে কোনও যায়গায় ইভেন্ট থাকলেই ম্যাডাম আমাদের যত্নসহকারে দেখভাল করতেন। খাওয়া দাওয়া থেকে ঘুম সব ঠিকঠাক হয়েছে কি না, সে সবের খোঁজ নিতেন। সে সময় ম্যাডামের জন্য বহু সিনেমার আমি কাজ পেয়েছি। অনেকের সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিয়েছেন, অনেককে আমার কাজের কথা বলেছেন। তাঁরাও পরবর্তীতে কাজে ডেকেছেন।’

‘যদিও ম্যাডামকে ফিল্মের জন্য সাজানোর অভিজ্ঞতা আমার খুবই কম। কেবল ‘মম’ সিনেমায় আমি ওঁনাকে সাজিয়েছি। তাও মেকআপের কাজ শুরু করেছিলেন সুভাষ , আমি শেষ করেছিলাম। কারণ, সুভাষের ডেট নিয়ে সমস্যা হচ্ছিল। তখন ম্যাডাম আর সুভাষ দু’জনেই জোর করাতে আমি শেষে রাজি হয়েছিলাম। কারণ, সিনেমার মেকআপ সম্পূর্ণ আলাদা। শেষের দিকে ঢুকলে মেকআপ করতেও অসুবিধা হয়। আর ম্যাডামের কথায় ‘না’ করতেও পারতাম না। তাই কাজটা করতেই হয়েছিল শেষমেশ।’

একদিন আরেকটা ফোন এলো। আচমকাই। সেই ফোন, যে ফোন এই ইন্ডাস্ট্রির অনেকের কাছে আজও একটা দুঃস্বপ্ন!’

‘২৪ ফেব্রুয়ারির রাতে আমার কাছেও যখন ফোনটা এল, থমকে গিয়েছিলাম। ফোনের ওপারেও যিনি ছিলেন, খানিক ধমকেই তাঁকে বলেছিলাম, মিথ্যা কথা বলছ। ততক্ষণে গোটা মুম্বাই প্রায় জেনে গিয়েছে। সকাল হতে হতে সব একদম পরিস্কার, শ্রীদেবী আর নেই। ধরেই নিলাম, ম্যাডামের অফিস থেকে কোনও দিন আর ফোন আসবে না।’

কিন্ত আবার ফোন এল। ফোন করলেন সেই ম্যাডামের ম্যানেজারই। ঠিন করেই ফেলেছিলাম যাঁর কাছে এতদিন ধরে কাজ করছি, সাজগোজ করতেই যাঁকে আমাকে প্রয়োজন হত, তাঁর নিথর দেহের সামনে আমি দাঁড়াবো না। তা-ও ফোন এল। ম্যাডামের মরদেহ মুম্বাইতে ঢুকতে না ঢুকতেই ফোন এল। তা আমাকে কী করতে হবে? কাপুর পরিবারের সকলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে, শেষ যাত্রাতেও ম্যাডামকে সাজানো হবে। এক্কেবারে সিনেমার মতোই। সেই রাতেই আমি ছুটলাম অনিল কাপুরের বাড়ি। সেখানেই ম্যাডামের নিথর দেহ শায়িত ছিল। তবে আমি যাওয়ার পর ঠিক হল যে, পর দিন সকালে একদম ফ্রেশভাবে ম্যাডামকে সাজানো হবে। আর বাড়ি ফিরে আমার সারা রাতটা এই ভাবতে ভাবতেই কেটে গেল, কী করে সাজাব? এত স্মৃতি, এত কথা, এত কিছু..’

‘সকালে গিয়ে শ্রীদেবীজির ঘরের দিকে হাঁটছি, সামনে দেখি রানি মুখার্জি। রানি ম্যাডামের সঙ্গেও পরিচয় বহু দিনের। আমাকে দেখতেই তিনি বললেন উঠলেন, ‘কিভাবে করবেন?’ আমি বললাম, ‘আপনি আমাকে একটু সাহায্য করুন।’ কোনও রকমে মেকআপ শুরু করলাম। হাতও সে দিন থরথর করে কাঁপছিল। রানি সে দিন খুব সাহায্য করেছিলেন। আমাকে আগেই বলে দেওয়া হয়েছিল, যত দ্রুত সম্ভব মেকআপ করে ফেলতে হবে।

যত দ্রুতই করি না কেন, মুখটা তো দেখতেই পাচ্ছিলাম। আর বারবার যেন মনে হচ্ছিল, এখনই ম্যাডাম উঠে পড়বেন আর আমাকে বলবেন, ‘রাজেশ এখানটায় ঠিক করে দিন তো, এখনই যেন বলে উঠবেন, ‘আইলাইনার একটু মোটা করে আকুন তো রাজেশ।’

কোনও রকমে সাজিয়েই আমি সেখান থেকে বাড়ি চলে আসি।

 

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

গুজবে কান দিয়ে রংপুরের যে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই শহিদুন্নবী জুয়েল আদতে ধর্মভিরু... আরও পড়ুন

আদতে ধর্মভিরু মুসলিম।

নভেম্বরের শুরুতেই নয়া প্রেসিডেন্ট পেতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডাকযোগে আগাম ভোট শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরই... আরও পড়ুন

ডাকযোগে আগাম ভোট

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।