বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে দিনভর সংঘর্ষ

মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট, ২০১৮ ০২:৫৮:৩৬ পূর্বাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  

রিডার::ঢাকা

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের নবম দিনে রাজধানীতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে পুলিশের কঠোর অবস্থানের মধ্যে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে।

সোমবার ঢাকার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে পুলিশের কঠোর অবস্থানের মধ্যে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়।মূলত আগের দু’দিন ঢাকার ধানমণ্ডিসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদেই শিক্ষার্থীরা এ দিন রাস্তায় নামেন।

সকাল থেকে সংঘর্ষের এসব ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে সরকারসমর্থক বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীদেরও দেখা গেছে বলে স্থানীয়রা জানান।

সকাল থেকে বিক্ষোভ মিছিল করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দুপুরে শাহবাগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের শিক্ষার্থীদেও ওপর কাঁদুনে গ্যাস ছুড়ে এবং জলকামান ব্যবহার করে ছত্রভঙ্গ কওে দেয় পুলিশ।

আফতাবনগরে ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির সামনে বেলা পৌনে ১১টা থেকে প্রায় সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা ছাত্রদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ চলে।

 

 

শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অবস্থান নিলে মেরুল বাড্ডার দিক থেকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা লাঠি নিয়ে তাদের ধাওয়া দেয়।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ঢাকার ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় দুই দিন এবং ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় এক দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে বসুন্ধরার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (আইইউবি) ও ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের (আইইউবি) শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়।

শিক্ষার্থীরা বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বিক্ষোভ করতে সড়কে নেমে পুলিশের বাধা পেলে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। দিনভর চলে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া।

আর তেজগাঁওয়ের আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সংঘর্ষের পর পুলিশ ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষার্থীদের একজন একজন করে বের হতে বললে অনেকে ভেতরে আটকা পড়েন, তৈরি হয় আতঙ্ক।

 

 

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে সংঘর্ষের মধ্যে মহাখালীর ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকেও শিক্ষার্থীদের বের হওয়ার ক্ষেত্রে পুলিশ কড়াকড়ি আরোপ করে বলে আন্দোলনকারীরা জানান।

ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিতে সংঘর্ষের খবর জানার পর ব্র্যাকের ছাত্রদের একটি অংশ বেরিয়ে গিয়ে হাতিরঝিলে জড়ো হয়। সেখান থেকে আফতাবনগর গেইটে গিয়ে তারা সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে।

এসব ঘটনায় সংবাদকর্মী, পুলিশসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। বিকালে সংঘর্ষ থামার পরও প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

ছাত্রদের দমাতেই পুলিশ নির্বিচার লাঠিচাজ করেছে। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে মুহুর্মুহু টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে।

রাবার বুলেট এবং পিস্তল থেকে গুলিবর্ষণের খবরও পাওয়া গেছে। এ ছাড়া পুলিশ রায়ট কার ও জলকামান ব্যবহার করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আজ ও কাল ইস্ট ওয়েস্ট, একদিনের জন্য ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ এবং ঘাতক বাসচালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ধানমণ্ডিতে পুলিশসহ এক দল যুবক হামলা করে। এর প্রতিবাদে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের পেছনে রেখে সামনে এগিয়ে আসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা। সোমবারও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে এলে পুলিশ ও যুবক দলটির সঙ্গে যথারীতি সংঘর্ষ বাধে।

বসুন্ধরা এলাকায় সংঘর্ষটি বড় আকার ধারণ করে। এখানে শিক্ষার্থীদের দমাতে গোটা গুলশান জোনের পুলিশ মোতায়েন করতে হয়েছে। সঙ্গে আনা টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট শেষ হয়ে যায়। পরে আবার আনতে হয়েছে। একপর্যায়ে পুলিশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে নিয়ে আলোচনায় বসেও ব্যর্থ হয়। রামপুরা এবং শাহবাগ এলাকায়ও বড় ধরনের সংঘর্ষ হয়। এসব ঘটনায় ভাটারা থানার ওসি কামরুজ্জামানসহ অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী আহত হন।

গত তিন দিনে আহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে আড়াই শতাধিক। শাহবাগ, আফতাবনগর ও বসুন্ধরা এলাকা থেকে সোমবার অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তারা সংশ্লিষ্ট এলাকার থানায় আছেন।

শিক্ষার্থীরা নবম দিনের মত বিক্ষোভ ও প্রতিবাদে অংশ নেন সোমবার। এদিনও সবার মুখে স্লোগান ছিল ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিজ’ (আমরা ন্যায়বিচার চাই)। এর মধ্যে গত কয়েক দিনের অসন্তোষ সহিংস প্রতিবাদে রূপ নেয়।

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর প্রগতি সরণির বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার প্রধান ফটকে অবস্থান নেয়ার চেষ্টা করেন বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় (এনএসইউ), ইন্ডিপেনডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয় (আইইউবি) ও আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের (এআইইউবি) শিক্ষার্থীরা। তখন পুলিশ তাদের ধাওয়া দেয়। ধাওয়ার মুখে প্রথমে তারা ফিরে যান। পরে সংগঠিত হয়ে দেড়টার দিকে ফের পুলিশের দিকে এগিয়ে যান ছাত্রছাত্রীরা। তখন তাদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শুরু হয়।

সন্ধ্যা ৭টায় এ রিপোর্ট লেখাকালে থেমে থেমে সংঘর্ষ চলছিল। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির জনসংযোগ বিভাগের প্রধান বেলাল আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, ‘ঘটনার সূত্রপাত সম্পর্কে আমি জানি না। তবে ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ চলছে। এতে শুধু নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা নয়, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও আছে। আমরা শিক্ষার্থীদের বোঝানোর চেষ্টা করছি। তারা কারও কথা শুনছে না।’

তিনি বলেন, ‘পুলিশ টিয়ার শেল মারছে। কয়েকটি ক্যাম্পাসের ভেতরেও পড়েছে। আমরা অবরুদ্ধ অবস্থায় আছি। তবে পরিস্থিতি শান্ত করার লক্ষ্যে আমাদের সিকিউরিটি প্রধানের সঙ্গে পুলিশের আলোচনা চলছে।’

প্রায় একই সময়ে প্রতিবাদ মিছিল বের করে বেসরকারি আহছানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বিক্ষোভকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে হানা দিয়ে ১১ শিক্ষার্থীকে আটক করে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। দুপুর সোয়া ২টায় ওই থানার উপ-পরিদর্শক কাওসার যুগান্তরকে বলেন, আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিশৃঙ্খলা করায় তাদের মধ্য থেকে ১১ জনকে আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

 

 

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার সালমান হাসান বলেন, আমরা বেশ কয়েকজনকে আটক করেছি। এখনও গুনে দেখা হয়নি।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এ সময় ভাটার থানার ওসিসহ তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে তিন শিক্ষার্থীকে আটক করে পুলিশ। এছাড়া বিচ্ছিন্নভাবে আরও কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

সোমবার বেলা ২টার দিকে সংঘর্ষ শুরু হয়। পরে দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। একপর্যায়ে পুলিশ মাইকিং করে আলোচনার প্রস্তাব দেয়। কয়েকজন শিক্ষার্থী আলোচনায়ও আসেন। কিন্তু তা ফলপ্রসূ হয়নি। ঘটনার সময়ে বসুন্ধরা এলাকার ভেতরে আটকে পড়ে কয়েকশ’ মানুষ। সব ধরনের যান চলাচল, দোকানপাট ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে পুরো এলাকায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুরো এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

 

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ছোট ছোট মিছিল নিয়ে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় জড়ো হয়। গ্রামীণফোন অফিসের সামনে থেকে বের হয়ে মূল সড়কের দিকে আসার চেষ্টা করে। এ সময় তারা ফুটপাতে দোকানপাট ভাংচুর করে। পুলিশের ধাওয়া খেয়ে শিক্ষার্থীরা আবাসিক এলাকার বিভিন্ন গলিতে ঢুকে পড়ে। সেখান থেকে পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল ছোড়ে। পুলিশও বৃষ্টির মতো রাবার বুলেট ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে।

বাড্ডা জোনের সহকারী কমিশনার আশরাফুল কবির বলেন, শিক্ষার্থীদের হামলায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছে। গুলশান পুলিশ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার আবদুল আহাদ সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশের ওপর হামলার সঙ্গে জড়িত বেশ কয়েকজনকে ধরে থানায় পাঠানো হয়েছে। এখন সঠিক সংখ্যা বলা যাচ্ছে না।

 

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

গুজবে কান দিয়ে রংপুরের যে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই শহিদুন্নবী জুয়েল আদতে ধর্মভিরু... আরও পড়ুন

আদতে ধর্মভিরু মুসলিম।

নভেম্বরের শুরুতেই নয়া প্রেসিডেন্ট পেতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডাকযোগে আগাম ভোট শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরই... আরও পড়ুন

ডাকযোগে আগাম ভোট

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।