প্রাচ্যের অক্সফোর্ড

রিডার::ফাহাম আবদুস সালাম

বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯ ০২:২৩:৪৩ অপরাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
নিয়মিত ফেল করতাম।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা জিনিসটা কী এটা বুঝতে আমার বেশ কয়েক বছর নষ্ট হয়েছিলো।

বরাবরই আমি খারাপ ছাত্র ছিলাম। ক্যাডেট কলেজে আমি নিয়মিত ফেল করতাম। আমার মাথায় একটা প্রায় ধর্ম- বিশ্বাস জন্মেছিলো যে আমি যদি হেমন্তের ‘এই রাত তোমার আমার’ শুনে প্রিটেস্ট পরীক্ষা দিতে ঢুকি তাহলে আমার মাথাটা ঠাণ্ডা থাকবে এবং পরীক্ষাটা পাশ করবো।

কিন্তু হেমন্ত আমাকে বাঁচাতে পারেন নাই। সর্বনাশের ব্যাপার হোলো পরীক্ষায় প্রশ্ন কোন চ্যাপ্টার থেকে এসেছে – এটাই আমি ঠাওর করতে পারি না। যথারীতি আমি নিষ্ঠার সাথে ফেল করতে থাকি। ক্যাডেট কলেজে এতো বড়ো অডিটোরিয়ামে ৫০ জন পরীক্ষা দেয় – এক পাশে সিন্ধু নদ তো অন্য দিকে ব্রহ্মপুত্র। পাশের জন থেকে যে টুকলি মারবো – তার ব্যবস্থাও নাই। কথা বলে উত্তর মেলাতে গেলে হার্ট এটাক হয়। অংকে আমার উত্তর হয়েছে ধরেন ৭.৯ – ভালো ছাত্রদের জিজ্ঞেশ করলে উত্তর দেয় ৪৯ হাজার ৯১২ – এই ধরনের ধাক্কা এতো অল্প বয়সে নেয়া যায় না।

খারাপ ছাত্রদের মধ্যে একটা ভিক্টিমহুড কাজ করে। এই আবাল-টাইপ প্রতিষ্ঠান কিংবা এই আবাল-টাইপ পরীক্ষা পদ্ধতি আমার মতো জিনিয়াসের প্রকৃত মূল্য নির্ধারণ করতে পারবে না। আমার তখনকার অনুযোগ ছিলো যে আমার দ্বারা এতো মুখস্ত করা সম্ভব না। আমি আশা করতে থাকলাম য়ুনিভার্সিটিতে গেলে বিশ্বকবি মহামতি রোদ্দুর রায়ের ভাষায় – সালা এই বালের সিক্ষা ব্যবস্থা সেস হবে।

চার-পাঁচ মাস রাতদিন পড়ালেখা করে আমি প্রচুর মুখস্থ করতে সক্ষম হই এবং এই কয়েক মাস আমি পাগল আছিলাম। আল্লাহর অশেষ রহমতে পুল সীরাত পার হলাম। এখনো আমি এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছি – এই দুঃস্বপ্ন দেখতে পাই।

 

 

ফার্স্ট ডিভিশনে কোনো লেটার মার্ক ছাড়া আমি ৮০২ নম্বর পাই। আমার মা এসএসসির ছুটিতে বাংলা সিনেমার মা’ দের মতো ছলে বলে কৌশলে প্রমিস করিয়েছিলো যে ইন্টারে আমি যেন এলেকটিভ সাবজেক্ট হিসাবে বায়োলজি নিই। এখন আমার আর ঠিক খেয়াল নিই এলেকটিভের হিসাবটা কী ছিলো, কিন্তু যতোদূর মনে পরে এইচএসসির পরে অঙ্ক করে দেখেছিলাম আমি যদি এলেকটিভে বায়োলজি না নিয়ে জিটিডি (জিয়োমেট্রিকাল টেকনিকাল ড্রয়িং) নিতাম তাহলে হয়তো টেনেটুনে স্ট্যান্ডও করে ফেলতাম।

মায়ের কথা শোনার কিছু সুবিধা আছে। ইন্টারে বায়োলজি না নিলে আমার মাইক্রোবায়োলজি পড়া হতো না, সম্ভবত কলা ভবনের একজন সার্টিফায়েড গাণ্ডু হতাম।

ক্যাডেট কলেজে থাকতে আমাদের বোঝানো হয়েছিলো আর্টসে পড়ে – কোয়াইট ফ্র্যাঙ্কলি – বলদরা। এই ধর্মবিশ্বাসে অধিষ্ঠিত হয়ে আমি নিজেকে বুঝালাম আর যাই হোক কলাভবনে পড়া যাবে না। একদিন একেনমিক্সের ক্লাসে ঢুকে পড়লাম – দেখি ক্লাসে অন্তত একশ স্টুডেন্ট। মানব জীবনের এমন করুণ অপচয় দেখে শিউরে উঠলাম। আমাকে সায়েন্সই পড়তে হবে।

আমাদের সময়ে বিজ্ঞান অনুষদে মাইক্রোবায়োজি সম্ভবত দুই নম্বর সাবজেক্ট ছিলো – এক নম্বরে ছিলো কম্পিউটার সায়েন্স (খেয়াল নেই – ভুল হতে পারে) অপু ভাই আমাকে এক ফোনালাপে দশ মিনিটের মধ্যে বুঝিয়ে ফেললেন মাইক্রোবায়োলজি পড়াটা ভালো। নামটাও বেশ ওজনদার। আমি অপু ভায়ের ওপর ঈমান আনলাম।

আসল সমস্যা অন্যত্র – অল্প বয়সে পিরিত করিয়া হয়ে গেলো জীবনের শেষ। প্রেম মানুষকে এতোটাই অন্ধ করে ফেলে যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কেও আমার বিশ্ববিদ্যালয় মনে হতে লাগলো। শামা যেহেতু বায়োকেমিস্ট্রিতে – দুই বিল্ডিং পরের মাইক্রোবায়োলজি অবশ্যই একটা ‘ভালো’ সাবজেক্ট।

আমি আশ্বস্ত হলাম, এইবার ঢাকা য়ুনিভার্সিটিতে আমার আর মুখস্ত করতে হবে না। আমার বিদ্যার বহরের প্রকৃত মূল্যায়ন হবে।

আর এইখানেই সবচেয়ে বড় ভুলটা হয়ে গেলো। ক্যাডেট কলেজের পরীক্ষায় তবুও অন্তত দুয়েকটা প্রশ্নে চিন্তা করতে হতো, মাইক্রোবায়োলজির পরীক্ষা ছিলো আগাগোড়া বমি। পুরা চার বছরে একমাত্র একটা মিড টার্ম পরীক্ষায় শাখাওয়াত স্যার বলে একজনের পরীক্ষায় এমন কয়েকটা প্রশ্ন ছিলো যেখানে পরীক্ষার হলে চিন্তা করতে হয়েছিলো।

এছাড়া আমরা সবাই পরীক্ষায় দ্রুত চিন্তা করতাম বইয়ের ঠিক কোন প্যারাগ্রাফ থেকে কোন প্যারাগ্রাফ বমি করতে হবে।

এই সিস্টেমে যারা অনেক মুখস্ত করতে পারে এবং দ্রুত লিখতে পারে তারাই আইনস্টাইন।

একজন ম্যাডাম ছিলেন যিনি চার বছর ধরে ১৯৭২ সালের এডিশনের এক বইয়ের ফটোকপি থেকে দেখে দেখে রিডিং পড়তেন। আপনাদের বিশ্বাস হবে না হয়তো বাট এটা সত্যি – আল্লাহর কসম।

আমি এখনো বুঝতে পারি না আমাদের বিদ্যাধর শিক্ষকেরা কী বুঝে সিলেবাস প্রণয়ন করেছিলেন। সম্ভবত যে যে বিষয়ে পিএইচডি করেছিলেন সে বিষয়টাই সিলেবাসে ঢুকানোর জন্য বায়না ধরতেন। নইলে কোন আক্কেলে আমাদের এগ্রিকালচারাল মাইক্রোবায়োলজি, সয়েল মাইক্রোবায়োলজি, ফুড মাইক্রোবায়োলজি – এসব ছাইপাশ সাবজেক্ট কোর্সের পর কোর্স পড়ানো হতো – আল্লাহ জানে।

সবচেয়ে রসিক ছিলেন আমাদের মালেক স্যার। তিনি আমাদের কোর্স কোঅর্ডিনেটর – ফার্স্ট ইয়ারে। প্রথম দিন প্ৰাচ্যের অক্সফোর্ডে এসে আমরা শিহরিত। তিনি আমাদের সতর্ক করে দিলেন ক্লাস ঠিকমতো না করলে ফৌজদারী মামলা হয়ে যেতে পারে। তো ওনার ক্লাস বুধবার সকাল আটটায়। উত্তরা থেকে প্রিমিয়াম বাসে ভোরবেলা রওনা দিয়ে কার্জন হলে আসি। প্রথম ৩ সপ্তাহ ক্লাস ভর্তি আদম কিন্তু মালেক স্যারের দেখা নাই। বিচিত্র অবস্থা। ক্যাডেট কলেজে ছয় বছরে এমন একটা ক্লাসও যায় নি যেখানে কোনো শিক্ষক আসে নি। এখানে তো দেখছি উদ্দাম অবস্থা।

চতুর্থ সপ্তায় তিনি প্রথম তশরিফ রাখলেন – তাও শেষ ১০ মিনিটে। অনুগ্রহ করে তিনি আমাদের জন্য একটা ঘোষণা রেডী করেছিলেন। দয়ার সাগর তিনি, ভদ্রতার পরাকাষ্ঠা – জানালেন আজকের ক্লাসটা তিনি অনিবার্যকারণবশত নিতে পারছেন না। আরো জানালেন য়ুনিভার্সিটির ক্লাস নাকি ডিজাইনই করা হয় শিক্ষক সব ক্লাস নেবেন না – এই পরিণতিকে মাথায় রেখে।

ফার্স্ট য়ারের চতুর্থ সপ্তায় এসে আমি মূলত বুঝতে পারলাম – প্রাচ্যের অক্সফোর্ড কী জিনিস।

আপনারা যারা আজো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বার জন্য স্বপ্ন দেখেন – তাদের জন্যে আমার ‘লাল সালাম’।

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সান্ধ্যকালীন কোর্সে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। বৃহস্পতিবার জনসংযোগ,... আরও পড়ুন

তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তরের

টিভিতে সাক্ষাৎকার এড়াতে ফ্রিজের ভেতর লুকিয়েছিলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।গতকাল বুধবার এমন খবর ছড়িয়েছে আর্ন্তজাতিক... আরও পড়ুন

সংবাদমাধ্যমগুলোতে

  নাইজারের একটি প্রত্যন্ত সামরিক ক্যাম্পে জঙ্গি হামলায় অন্তত ৭১ জন সৈন্য নিহত হয়েছে। নাইজারের... আরও পড়ুন

নাইজারের সামরিক

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচন জানুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে আয়োজনের সিদ্ধান্ত রয়েছে কমিশনের।... আরও পড়ুন

সপ্তাহে এ নির্বাচনের

  ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বলেছেন—দুনিয়ার সব মুসলমানরা যদি তাঁর দেশে... আরও পড়ুন

চান, তাহলে সেটি সম্ভব

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় আপিল বিভাগ বেগম খালেদা জিয়ার জামিন খারিজ করে দিয়েছেন। একইসঙ্গে বিএনপি... আরও পড়ুন

সম্মতি থাকলে তাঁকে

রাজধানীর রবীন্দ্র সরোবর প্রাঙ্গণে পপুলেশন সার্ভিসেস এন্ড ট্রেনিং সেন্টার (পিএসটিসি) এর উদ্যোগে সম্প্রতি আয়োজন করা... আরও পড়ুন

নারীর প্রতি সহিংসতার

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের উপর কর্তৃত্ব ও সাম্প্রতিক ৩৩৯টি পদের নিয়োগ নিয়ে আনুষ্ঠানিক বৈঠকে ক্ষুব্ধ... আরও পড়ুন

উপস্থাপন করেছেন

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক একজন এক্সপার্ট। তাকে এক্সপার্ট হয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে হবে। উল্টোটা না। বেশীরভাগ মানুষ দেখেছি... আরও পড়ুন

এক্সপার্টিজ জিনিসটা কী

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মেডিক্যাল রিপোর্ট আজ বুধবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব... আরও পড়ুন

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Recommended for you

এক্সপার্টিজ জিনিসটা কী

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড-৩

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক একজন এক্সপার্ট। তাকে এক্সপার্ট হয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে হবে। উল্টোটা না। বেশীরভাগ মানুষ দেখেছি এক্সপার্টিজ জিনিসটা কী বোঝে না। অনেকেই মোটামুটি মনে করেন যে টেক্সট বুক সম্বন্ধে সম্যক জ্ঞান... আরও পড়ুন

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড-২

বাংলাদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে প্রচলিত সবচাইতে বড় কুসংস্কার হোলো - এই একটি বিশ্ববিদ্যালয়। শুনতে ভালো লাগবে না কিন্তু কথাটা সত্যি - এটা কোনো বিশ্ববিদ্যালয় না। এখানে যারা বয়সে বড় - তারা আসে চাকরি করতে আর যারা বয়সে কচি - তারা... আরও পড়ুন

ঢাবি ‘ঘ’ ইউনিটের ফল আগামীকাল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষার ফল আগামীকাল মঙ্গলবার প্রকাশ করা হবে। আগামীকাল দুপুর সাড়ে ১২টায় এ ফল প্রকাশ করা হবে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। এতে বলা... আরও পড়ুন

ফলাফল প্রকাশ করেছে

ঢাবির ‘ক’ ইউনিটে উত্তীর্ণ ১১ হাজার

  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক' ইউনিটের অধীন স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এবছর ‘ক’ ইউনিটে সমন্বিতভাবে পাসের হার মোট পরীক্ষার্থীর ১৩.০৫ শতাংশ। রোববার (২০ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২ টার সময়... আরও পড়ুন

প্রথমবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার

ঢাবির ‘চ’ ইউনিটে উত্তীর্ণ ৩৪৩ পরীক্ষার্থী

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে চারুকলা অনুষদভুক্ত ‘চ’ ইউনিটের অধীন স্নাতক (সম্মান) প্রথমবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এবছর ‘চ’ ইউনিটে পাসের হার মোট পরীক্ষার্থীর ২.৫০ শতাংশ। রোববার (২০ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের কেন্দ্রীয় ভর্তি... আরও পড়ুন