পুলিশ গায়েবি মামলা করলে, তার পক্ষে ‘নিরপেক্ষ’ ভূমিকা কতটা সম্ভব:মাহবুব তালুকদার

রিডার:: ঢাকা

বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৮ ১০:০২:২৩ অপরাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
তালুকদার সেখানে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আজ বৃহষ্পতিবার নির্বাচন কমিশন ভবনে অনুষ্ঠিত আইন-শঙ্খলা বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার সেখানে উপস্থিত আইন-শঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকতর্কাদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রাখেন, ‘নির্বাচনী সিডিউল ঘোষণার পূর্বে যে পুলিশ গায়েবি মামলা করেছে, সিডিউল ঘোষণার পরে তার পক্ষে রাতারাতি পালটে গিয়ে নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করা কতটুকু সম্ভব।’

তিনি পুলিশের ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের তালিকা তৈরি বিষয়টি সম্পর্কে বলেন, ‘অতি উৎসাহী কিছু পুলিশ সদস্যের কর্মকাণ্ডে ব্যাপক বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে।’ এছাড়া নির্বাচনে কী ধরণের পক্ষপাতিত্ব ও অনিয়ম হয়েছে তা তুলে ধরতে ওই বৈঠকে গাজীপুর ও বরিশাল সিটি করপোরেশনের কিছু তথ্য জানান।

এসময় মাহবুব তালকদার অভিযোগ করে বলেন, ‘গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ‘স্বরূপ সন্ধান’ শিরোনামে আমি একটি প্রতিবেদন তৈরি করে তাঁকে সমর্পন করি। অজ্ঞাত কারণে সেটি এখনও আলোর মুখ দেখেনি।’

মাহবুব তালুকদার তাঁর লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘বর্তমান কমিশন দায়িত্ব গ্রহণের পর পরই আমরা দুটো উল্লেখযোগ্য নির্বাচন সম্পন্ন করেছিলাম। একটি কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন এবং অপরটি রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। এই দুটি নির্বাচনে আমরা সুনামের সঙ্গে উতরে গেছি বলে অনুমান করতে পারি।

কারণ এ দুটি নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বলে অভিযোগ শোনা যায়নি। বলতে দ্বিধা নেই, এই দুটি নির্বাচনে বর্তমান নির্বাচন কমিশন জনমানসে একটা আস্থার স্থান তৈরি করে নিতে পেরেছে।

পরবর্তী সময়ে খুলনা গাজীপুর বরিশাল রাজশাহী ও সিলেট যে পাঁচটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, তার অভিজ্ঞতা ছিল ভিন্ন। আমি খুলনা রাজশাহী ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পর্কে কোনো কথা বলব না। তবে যেহেতু আমি বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে একক দায়িত্বে ছিলাম, সেহেতু এই নির্বাচনের অভিজ্ঞতা আপনাদের সামনে তুলে ধরব।

অন্যদিকে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পর্কে মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনার আমাকে একটি প্রতিবেদন তৈরি করতে অনুরোধ জানান। “গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ‘স্বরূপ সন্ধান” শিরোনামে আমি একটি প্রতিবেদন তৈরি করে তাঁকে সমর্পন করি। অজ্ঞাত কারণে সেটি এখনও আলোর মুখ দেখেনি।’

তিনি বলেন, ‘বিগত নির্বাচনের অভিজ্ঞতার আলোকে আত্ম-বিশ্লেষণের তাগিতেই আমি গাজীপুর ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন দুটির ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিকগুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চাই।

প্রথমেই বলে রাখা প্রয়োজন যে, কোনো ব্যক্তি বা সংস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য নয়, কারো দায়িত্ব পালন অবমূল্যাযন করার জন্য নয়, বিষয়গুলো উপস্থাপনা করতে হচ্ছে, পূর্বের সমস্যাগুলোর সমাধান খুঁজে পেতে এবং আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনুরূপট সমস্যা যাতে সৃষ্ট না হয়, সেই পথ সুগম করতেই এই আলোচনা।’

মাহবুব তালুকদার তাঁর বক্তব্যে গাজীপুর নির্বাচনের বিষয়ে তিনটি ঘটনার উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘প্রথম ঘটনা হচ্ছে, গাজীপুর জেলা প্রশাসক ১৭৯ জনের একটি স্বাক্ষরবিহীন তালিকা রিটার্নিং অফিসারের কাছে প্রেরণে করলে রিটার্নিং অফিসার তা গ্রহণে অসম্মতি জানান।

পরে জেলা প্রশাসকের অফিস থেকে নিুোক্ত ফরোয়ার্ডিংসহ তালিকাটি পাঠানো হলেও তালিকায় কারো স্বাক্ষর ছিল না।’

এতে বলা হয়, গোয়েন্দা সংস্থা থেকে এ কার্যালয়ে একটি প্রতিবেদন পাওয়া গিয়েছে। প্রতিবেদন পর্যালোচনায় প্রতিবেদনটি গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রিসাইডিং অফিসার নিয়োগ সংক্রান্ত। প্রিসাইডিং অফিসার নিয়োগ সংক্রান্ত কার্যক্রম যেহেতু রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক সম্পাদিত হয়ে থাকে, বিধায় প্রতিবেদনটি পরবর্তী প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে এতদ্সঙ্গে প্রেরণ করা হলো।’

 

মাহাবুব তালুকদার বৈঠকে বলেন, ‘স্বাক্ষরবিহীন ওই তালিকাটিতে কোনো শিরোনাম ছিল না। ফরোয়াডিংয়ে জেলা প্রশাসক অফিসের নিুপর্যায়ের একজন কর্মকর্তার নাম ও স্বাক্ষর ছিল। আমি জানি না প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োগে রিটার্নিং অফিসারের কোনো অযাচিত সহায়তার প্রয়োজন আছে কি না।’

দ্বিতীয় বিষয়টি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এটাও পুলিশের কার্যক্রম সম্পর্কিত। রিটার্নিং অফিসার মৌখিকভাবে বলেছেন। বিরোধী দলের মেয়রপ্রার্থীর কোনো অভিযোগপত্র প্রেরণ করা হলে পুলিশ অফিস থেকে তা গ্রহণের স্বীকৃতিপত্র দেয়া হতো না। অনেক অনুরোধের পর চিঠি গ্রহণ করা হতো।

বিরোধী দলের মেয়র প্রার্থীর পুলিশি হয়রানি, গণগ্রেফতার, ভীতি প্রদর্শন, কেন্দ্র দখল সংক্রান্ত অভিযোগের বিষয়ে পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করেছে। এসব অভিযোগ সংবলিত পত্রের কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি।

রিটার্নিং অফিসার প্রেরিত ১১টি অভিযোগপত্রের মধ্যে মাত্র ৪টির উত্তর পাওয়া গেছে, যা অনেকটা দায়সারা গোছের। পুলিশ বাকি ৭টি অভিযোগের কোনো উত্তর প্রদান প্রয়োজন মনে করেনি।’

তৃতীয় বিষয়টিও পুলিশকে নিয়েই উল্লেখ করে এ নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘গাজীপুরে নির্বাচনকালে ইউনিফরমধারী পুলিশ ও সাদা পোষাকের পুলিশ অনেক ব্যক্তিকে বাসা থেকে কিংবা রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ আছে। অনেককে অন্য জেলায় নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের একজন ছাড়া পুলিশ অন্যদের গ্রেফতারের বিষয়ে কোনো স্বীকারোক্তি করেনি।

নির্বাচনের পরে দেখা যায় তাদের ১০জনকে অন্তত অনেকে কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে পাওয়া গেছে। গ্রেফতার না করলে তারা কারাগারে গেলেন কীভাবে? এ প্রশ্নের কোনো জবাব পাওয়া যায়নি।’

বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন সম্পর্কে এ নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘এই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের দায়িত্বে এককভাবে আমি ছিলাম। কিন্তু দুঃখের বিষয় পাঁচটি সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা ছিল বরিশালের। সকালে ভোটগ্রহণ কার্যক্রম বেশ ভালো ছিল। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এখানে বিভিন্নমুখি অনিয়ম শুরু হয়।

বেলা ১১টার মধ্যে আমার কাছে প্রতীয়মান হয় যে, এভাবে ভোট গ্রহণ চলতে পারে না। মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যান্য মাননীয় কমিশনারদের আমি জানাই বরিশালের ভোট কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া প্রয়োজন।

এক পর্যায়ে কমিশনারবৃন্দের সবাই ভোট বন্ধ করার বিষয়ে একমত হলেও নির্বাচন বন্ধ করলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিস্থিতি সামাল দিতে পারবে কিনা এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা দেয়া সম্ভব হবে কি না ভেবে নির্বাচন বন্ধ করা থেকে আমরা বিরত থাকি।

ইতোমধ্যে ৬ জন মেয়রপ্রার্থীর মধ্যে ৫ জন তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন এবং একজন প্রার্থীই প্রায় প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীনভাবে বিজয়ী হন।’

তিনি বলেন, ‘বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন সম্পর্কে পরে নির্বাচন কমিশনের যে তদন্ত কমিটি গঠিত হয় তার সম্মুখে রিটার্নিং অফিসার যে বক্তব্য দেন তার কিয়দংশ তুলে ধরছি : “কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিরোধী প্রার্থীরে পুলিশ কর্তৃক অযাচিতভাবে হয়রানি করা হয়েছে।

আবার সরকারী দলের প্রার্থীর আচরণবিধি ভঙ্গের ঘটনায় পুলিশকে নিষ্ক্রিয় ভূমিকায় দেখা গেছে। শুধু তাই নয় উল্টো বিরোধী প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণায় পুলিশের অযাচিত হস্তক্ষেপের অভিযোগ রয়েছে।’

অন্যদিকে নির্বাচনের সার্বিক পর্যালোচনায় তদন্ত কমিটির বক্তব্য ‘বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণের দিন অনেক ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক ছিল না এবং ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার এ বিষয়ে আন্তরিক ছিলেন না।

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও পুলিশ কর্তৃপক্ষ নির্বাচন কমিশনের পর্যবেক্ষক ও সহকারী রিটার্নিং অফিসারদের নিরাপত্তায় কোনো পুলিশ সদস্য নিয়োগ দেননি। ভোটকেন্দ্রসহ নির্বাচনী এলাকায় অনেক ক্ষেত্রে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ছিল নাজকু।

আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যগণ অনেক ক্ষেত্রেই রিটার্নিং অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসারের নির্দেশনা অনুসরণ করেননি। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভোট কেন্দ্রে ও ভোটকেন্দ্রের বাইরে প্রচুর বহিরাগতদের অবস্থান ছিল।’

মাহবুব তালুকদার বৈঠকে জানান, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সবচেয়ে বড় ইতিবাচক দিক হলো এসব নির্বাচনে কোনো প্রাণহানি ঘটেনি। বিভিন্ন স্থানে অনিয়ম সত্ত্বেও ভোটকেন্দ্রগুলোতে মোটামুটি শান্তি বজায় ছিল, শৃঙ্খলা কতটুকু বজায় ছিল তা প্রশ্নসাপেক্ষ। একই সময়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের স্থানীয় নির্বাচনে ১৪ জনের প্রাণহানি ঘটে। সেসব দিক বিবেচনায় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ইতিবাচক বিষয়টি উপেক্ষা করা যায় না।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে বহুল প্রচলিত গায়েবি মামলা এখন আর গায়েবি আওয়াজ নয়। মাননীয় হাইকোর্ট পর্যন্ত এ ধরনের মামলাতে পুলিশের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হয় বলে উল্লেখ করেছেন। ঢাকার পুলিশ কমিশনার মহোদয় পুলিশ বাহিনীকে গায়েবি মামলা না করতে নির্দেশ দিয়েছেন

। তারপরও অনেক ক্ষেত্রে এরূপ মামলা চালু রয়েছে। আমার প্রশ্ন হলো, সিডিউল ঘোষণার পূর্বে যে পুলিশ গায়েবি মামলা করেছে, সিডিউল ঘোষণার পরে তার পক্ষে রাতারাতি পালটে গিয়ে নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করা কতটুকু সম্ভব? এ প্রশ্ন মনে জাগে। পুলিশ বাহিনী নির্বাচনে সবচেয়ে বড় সহায়ক শক্তি। তারা নিরপেক্ষ ভূমিকা পারন না করলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়বে।’

মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘কিছুসংখ্যক গায়েবি মামলার আসামিদের তালিকা বিরোধী দল থেকে নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়েছে। যদিও অধিকাংশই পুরনো মামলা। এসব মামলার অজ্ঞাতনামা আসামিদের অনেকের আদালত থেকে জামিন নেয়া হয়ত সম্ভব হবে না।

কোনো কোনো সম্ভাব্য প্রার্থীর বিরুদ্ধে মামলা থাকার কারণে তারা নির্বাচনী প্রচারকাজ চালাতে ভয় পাচ্ছেন। এহেন ভীতি সর্বক্ষেত্রে অমূলক নয়। নির্বাচনী ব্যবস্থাপনাকে স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে নির্বাচন পূর্ব সময়ে প্রার্থীরা যাতে হয়রানির শিকার না হয়, সেজন্য ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

এ সম্পর্কে নির্বাচন কমিশন থেকে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, তা যথাযথভাবে পরিপালন করা প্রয়োজন।’

২০১৬ সালের ২৪ মে বাংলাদেশ সরকার বনাম ব্লাস্ট-এর মামলার রায়ে সুপ্রিম কোর্টের মাননীয় আপিল বিভাগ ‘গাইড লাইন্স ফর ল’ এনফোর্সমেন্ট এজেন্সিস’ শিরোনামে গ্রেফতার সম্পর্কে নির্দেশনাটির উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এটি কোথাও যথাযোগ্যভাবে পরিপালন করা হয়েছে বলে আমার জানা নেই।

আপিল বিভাগের নির্দেশনাটিতে মানবিক অধিকার ও মানবিক মর্যাদা সমুন্নত রাখার যে অভিব্যক্তি রয়েছে, তা পরিপালিত হলে পুলিশের আচরণবিধি লঙ্ঘনের প্রবণতা অনেক কমে যেতে পারত।

মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ বলে একটা বিষয় নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রায়ই দাবি করা হয়ে থাকে। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কমিশন লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের আশ্বাস দিলেও সত্যিকার অর্থে এর তেমন কোনো কার্যকারিতা ছিল না। ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ একটি আপেক্ষিক কথা। এর কোরো নির্দিষ্ট পরিমাপক নেই।

তবে নির্বাচন কমিশন বিভিন্ন বিধি বিধানকে সামনে রেখে সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরিতে বদ্ধপরিকর ছিল, একথা স্বীকার করতে হবে। কিন্তু নির্বাচনী এলাকার বাস্তব পরিস্থিতি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের অনুকূল ছিল না।

আমার মনে হয় সরকার যদি সরকারি দলের ব্যাপারে নিরপেক্ষ থাকে, তাহলে ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরির পথ সুগম হবে। নির্বাচন কমিশনের পক্ষে এককভাবে ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরি করা সম্ভব নয়। তবুও আমি মনে করি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরিতে পুলিশের একটা বিরাট ভূমিকা আছে।

পুলিশ যদি সবার প্রতি সমান আচরণ করে তাহলে সেটা সম্ভব হতে পারে।’

তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ও জাতীয় নির্বাচন এক কথা নয়। আগেই বলেছি, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের বিষয়গুলো উল্লেখ করেছি নির্বাচনকালে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সমস্যাগুলো চিহ্নিত করার জন্য এটা কখনোই পুলিশ বাহিনীর কার্যক্রমকে অবমূল্যায়ন করার জন্য নয়। আমার বক্তব্য আÍবিশ্লেষণ হিসাবেই গ্রহণযোগ্য।

আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্প্রতি মিডিয়ায় যে বিষয়টি ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে তা হলো নির্বাচন কর্মকর্তাদের তথ্য সংগ্রহে পুলিশ দু’মাস পূর্ব থেকে মাঠে নেমেছে। তারা প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও পোলিং কর্মকর্তাদের বিষয়ে নানারূপ তথ্য সংগ্রহ করছে এবং জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

পত্রিকামতে এই তথ্যানুসন্ধানের বিষয়ে পুলিশকে কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। কমিশন নির্বাচন কর্মকর্তাদের তথ্যসংগ্রহের জন্য কোনো নির্দেশনা দেয়নি। সুতরাং এসব কর্মকাণ্ড কে কী উদ্দেশ্যে করছে, তা রহস্যজনক। বলা বাহুল্য, অতি উৎসাহী কিছু পুলিশ সদস্যের এই কর্মকাণ্ডে ব্যাপক বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে, যার দায় নির্বাচন কমিশনের ওপর এসে পড়ে।’

আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে এ নির্বাচন কমিশনার আরো বলেন, ‘আমি আগেও আপনাদের বলেছি সংবিধান অনুযায়ী দায়িত্ব পালনের নিমিত্ত আমরা যে শপথ গ্রহণ করেছি, আপনারা সেই শপথেথর অংশীদার।

কারণ নির্বাচন আমরা করি না, নির্বাচন আপনারাই করে থাকে। আপনারা আমাদের সবচেয়ে বড় সহায়ক শক্তি। অতীতে যে সব জাতীয় নির্বাচন অনুষ্টিত হয়েছে আপনারা তাতে দক্ষতা নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার পরিচয় দিয়েছেন।

আমি আশা করি অতীতের মতো আপনাদের সার্বিক সহযোগিতায় এবারও নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। তবু আমার বক্তব্যে আÍবিশ্লেষণমূলক কথা বলতে হলো অধিকতর সচেতনতা সৃষ্টির জন্য।

এবারের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নানা কারণে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শুধু দেশবাসী নয়, বিশ্ববাসী আমারে নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে আছে। সত্যি বলতে কী, একাদশ জাতীয় নির্বাচন আমাদের আÍসম্মান সমুন্নত রাখার নির্বাচন।

আমরা কোনোভাবেই এই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ হতে দিতে পারি না। আর একথা সত্য যে আমরা প্রশ্নবিদ্ধ হলে তার দায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর বর্তাবে এবং আপনারা প্রশ্নবিদ্ধ হলে আমরা দায় আমরা এড়াতে পারব না।

সুতরাং আশা করি জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একটি অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ গ্রহণযোগ্য জাতীয় নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা দেশবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করতে পারব।’

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

গুজবে কান দিয়ে রংপুরের যে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই শহিদুন্নবী জুয়েল আদতে ধর্মভিরু... আরও পড়ুন

আদতে ধর্মভিরু মুসলিম।

নভেম্বরের শুরুতেই নয়া প্রেসিডেন্ট পেতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডাকযোগে আগাম ভোট শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরই... আরও পড়ুন

ডাকযোগে আগাম ভোট

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।