ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা কী খাচ্ছেন?

রিডার:: খালিদ হোসেন

সোমবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৮ ০২:৩৮:৪৪ অপরাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
এখনও লাখো শিক্ষার্থীর

ছবি::আশফাক করিম

এখনও লাখো শিক্ষার্থীর স্বপ্নের প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। প্রচুর অধ্যাবসায় ও প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এখানে জায়গা করে নিতে হয় ছাত্রদের । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে সুযোগ পাওয়া এসব শিক্ষার্থীরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসার কারণে তাদের অধিকাংশই আবাসিক হলে থাকেন। বাহিরের চাকচিক্যের আড়ালে থাকা ঢাবির নির্মম বাস্তবতাগুলো মেনে নিতে শুরু করেন ১ম বর্ষ থেকে হলে থাকা ছাত্ররা। এরমধ্যে অন্যতম হল হলের আবাসন ও খাদ্য সমস্যা।

ধরুন,আপনি প্রচন্ড ক্ষুধার্ত। আর আপনার সামনে তখন এনে দেওয়া হলো — আঁশযুক্ত মাছ অথবা পালকযুক্ত মুরগির মাংস সাথে পানি দিয়ে হাত ধোয়া যায় এমন ডাল। আপনি কি তখন তা মুখে তুলতে পারবেন ?

কিন্তু প্রত্যেক বেলায় এসব খেয়েই জীবন বাঁচাতে হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতেকটি হলের শিক্ষার্থীদের। এসব অস্বাস্থ্যকর খাবার পরিবেশনের জন্যে শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্ষোভের অন্ত নেই। প্রায়ই সময় চলে ক্যান্টিন-বয়, মালিকদের সাথে কথার কাটাকাটি। হলের দায়িত্বে থাকা প্রভোস্ট ও শিক্ষকদের কাছে অভিযোগ দিয়েও কোনো কাজ হয় না।

 

 

কয়েকজন শিক্ষার্থী বাংলা রিডারের প্রতিবেদককে বলেন, অভিযোগ দেওয়ার পর কিছু দিন খাবারের মান ভালো হলেও, তারপর আবার আগের অবস্থা-ই হয়ে যায়।

খাবারের মান নিয়ে জানতে চাইলে সূর্যসেন হলের শিক্ষার্থী রিয়াজ বলেন, ‘মানের দিক থেকে বলতে গেলে অতি নিম্নমানের খাবার আমরা খাই । খাবারের মাঝে কোনো বৈচিত্রতা নেই । একই খাবার প্রতিদিন সরবরাহ করা হয় ।‘

বিজয় একাত্তর হলের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘খাবারের মধ্যে প্রায় সময় অযাচিত কিছু পাওয়াই যায়। ডালের অবস্থা খুবই করুণ ! ডাল খাওয়া আর পানি খাওয়া একই কথা ।’

বাঙ্গালির চীরচেনা ভাত নিয়েও ছাত্রদের অভিযোগের অন্ত নেই। শিক্ষার্থীদের পরিবেশন করা হয় নিম্নমানের চালের । ভাতে পাথরের টুকরো, পোকামাকড় ও এক ধরনের বাজে গন্ধও থাকা যেন স্বাভাবিকতায় পরিণত হয়েছে ।

বিজয় একাত্তর হলের অপর এক শিক্ষার্থী রাজু বলেন, ‘ভাতে সবসময় পাথরের টুকরা পাওয়া যায় । ভাতের মার ভালোভাবে না ফেলানোয় ভাত ভেজা ভেজা থাকে । ইচ্ছা না থাকলেও এসব ভাত খেতে আমরা বাধ্য হচ্ছি ।’

হাজী মুহম্মদ মহসীন হলের ১ম বর্ষের ছাত্র আলী ইমাম বলেন, ‘মাছ খেলে আপনি নিশ্চিত মাছের আইশ পাবেনই । আজও আমি দুপুরের খাবারে পঁচা আলু পেয়েছি । মাংস ভালোভাবে রান্না না করার কারণে সিদ্ধ হয় না । কাকে বলবো, বলে লাভটা কী, বলুনতো?’

 

 

বঙ্গবন্ধু হলের আনিসুজ্জামান সাচ্চু বলেন, ‘ক্যান্টিনের এসব খাবার খেয়ে প্রায়ই আমরা পেটের পীড়ায় ভুগী ।’

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, বেশিরভাগ ক্যান্টিন ম্যানেজার বাজার থেকে কম মূল্যে নিম্নমানের তরকারি, মাছ ও মাংস কিনে আনেন । তারা এসব সবজি, মাছ ও মাংস ফ্রিজে রেখে পরবর্তীতে তা রান্না করে আমাদের পরিবেশন করেন । অনেক সময় দুপুরের তরকারি, ডাল গরম করে রাতে আমাদের খাওয়ানো হয় ।

রান্নাঘর, ডাইনিং, থালা বাসনের অবস্থাও শোচনীয় । ডাইনিংগুলো সব সময় অপরিচ্ছন্ন কাপড়ের ন্যাকড়া দিয়ে পরিষ্কার করা হয়। তাছাড়া যারা খাবার পরিবেশন করেন তারা হাত ভালো ভাবে পরিষ্কার না করে শিক্ষার্থীদের খাবার পরিবেশন করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে জিয়া হলের ক্যান্টিনে এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘বাসন-কোসন কোনো ভাবে ধুয়ে আমাদের সামনে আনা হয়। প্লেটেগুলো এঁটো থেকেই যায়। ডাইনিংয়ে রাখা লবণ দিয়ে তা আবার পরিষ্কার করে আমাদের খেতে হয়।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রসাশন সব হলের জন্যে একই মূল্যের খাদ্য তালিকা তৈরী করে দিয়েছেন । এসব খাদ্য তালিকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের আদেশে ক্যান্টিনের দেওয়ালে টাঙানো হলেও এর কার্যকারিতা নেই সিকি মাত্র । এ সম্পর্কে সূর্যসেন হলের শিক্ষার্থী তুহিন বলেন, ‘যদিও খাদ্য তালিকার মূল্য প্রশাসন নির্ধারণ করে দিয়েছেন, তবে এই মূল্য তালিকা অনুযায়ী টাকা দিতে গেলে তারা মানছেন না ।’

খাবারের মান সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে বঙ্গবন্ধু হলের ক্যান্টিন ম্যানাজার ডালিম বাংলা রিডারকে বলেন, ‘দ্রব্যমূল্যের দাম বেশি । খাবারের মান বাড়াতে হলে টাকার পরিমাণও বাড়বে। যা ছাত্ররা দিতে চায় না । তাই আমরা খাবারের মান বাড়াতে পারি না ।’

 

 

মূল্য তালিকা অনুযায়ী টাকা না রাখার কারণ তিনি বলেন, ‘আমরা কিছু ভাল খাবার যেমন, ইলিশ মাছ ,খাসির মাংস এগুলো পরিবেশন করি যা খাদ্য তালিকায় নাই । এসব খাবার ছাত্ররা খেতে চায় । আর এসব খাবারের দাম একটু বেশি ।’

খাবারের মান ও মূল্য তালিকা অনুযায়ী টাকা না রাখার কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে সূর্যসেন হলের ক্যান্টিন মালিক লোকমান বলেন , ‘সব সময় মূল্য তালিকা অনুযায়ী খাবারের দাম রাখা সম্ভব নয় । এভাবে রাখলে আমাদের লোকসান  গুনতে হয় । আর খাবারের মান এর চেয়ে ভালো করাও সম্ভব নয় ।’

অপরদিকে হলের ছাত্রদের পরিচালনায় বিভিন্ন হলে মেস গঠিত হয়েছে । খাবারের মান , পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও খাবার পরিবেশনার দিক দিয়ে এসব মেসের খাবার ক্যান্টিনের চেয়ে তুলনামূলক অনেক ভালো বলে ছাত্ররা বলছেন।

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

গুজবে কান দিয়ে রংপুরের যে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই শহিদুন্নবী জুয়েল আদতে ধর্মভিরু... আরও পড়ুন

আদতে ধর্মভিরু মুসলিম।

নভেম্বরের শুরুতেই নয়া প্রেসিডেন্ট পেতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডাকযোগে আগাম ভোট শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরই... আরও পড়ুন

ডাকযোগে আগাম ভোট

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।