গ্রেফতার আতংকে ইসি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা!

বুধবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৭:৫৬:৫৮ অপরাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
জড়িত থাকার অপরাধে

গ্রেফতার আতংকে রয়েছে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। রোহিঙ্গাদের ভোটার করার কার্যক্রমে জড়িত থাকার অপরাধে টেকনিক্যাল এক্সপার্ট শাহানুর মিয়া গ্রেফতারের পর সবাই আতংকের ভীতরে আছেন। গত সোমবার নির্বাচন ভবন থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করে।

বাংলাদেশে আশ্রিয় মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের ভোটার করার অপচেষ্টায় ইসির মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে এনআইডি উইং এবং নির্বাচন ভবনের কারোর কারোর যোগসাজশ রয়েছে।

এ বিষয়ে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি) মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের ভোটার তালিকায় সম্পৃক্ততা থাকার বিষয়ে ইসির ১৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর তথ্য পাওয়া গেছে। তদন্ত এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার স্বার্থে আমরা এখনই তাদের নাম প্রকাশ করছি না।

যে কোন সময়ে তাদের গ্রেফতার করা হবে। রোহিঙ্গাদের ভোটার করার অপচেষ্টার সঙ্গে গ্রেফতারকৃত শাহানুরের জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

ইসির সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রোহিঙ্গা ভোটার করার অপরাধে নির্বাচন কমিশনের বেশকয়েকজন উধ্বর্তন কর্মকর্তার সম্পৃক্ততা থাকার প্রমান পাওয়া গেছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে।

ইতিমধ্যে তাদেরকে নজরদারি আওতায় রাখা হয়েছে। তবে নির্বাচন ভবন থেকে একজন কর্মকর্তার গ্রেফতারের পর অন্যরাও আতংকে রয়েছেন। কেননা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের একার পক্ষে রোহিঙ্গাদের ভোটার করা সম্ভব নয়।

এই প্রক্রিয়ায় ঢাকার নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পৃক্তাও পাওয়া গেছে। মাঠ পর্যায় থেকে এ পর্যন্ত ৪জন কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

চলমান ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে মিয়ানমার থেকে আসা ৬১ জন রোহিঙ্গা ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হওয়ার অপচেষ্টা করে। যাদের তথ্য লোকাল সার্ভারে অন্তর্ভূক্তও করা হয়।

চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের ডাটা এন্ট্রি অপারেটররা নিবন্ধন কর্মকর্তার অগোচরে এই অপকর্মটি করেন। যদিও কোথাও কোথাও কর্মকর্তারাও এ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন।

রোহিঙ্গারা ভোটার তালিকায় ‘অন্তর্ভুক্ত’ হওয়ার খবর প্রকাশের পর নির্বাচন কমিশনের বিশেষ তদন্ত কমিটি তথ্য পেয়েছে, সেটা হলো-শুক্র ও শনিবার ভোটার করে নেয়ার সরঞ্জাম (মডেম ও সিগনেচার প্যাড) বাড়িতে নিয়ে গিয়ে এই অপকর্মটি করতেন কর্মচারীরা। অথচ মডেম থাকার কথা নিবন্ধন কর্মকর্তার কাছে ও তার অফিসে।

এই বাস্তবতায় নির্বাচন কমিশন ভোটার তালিকায় কাউকে অন্তর্ভুক্ত করার এখতিয়ার বা পূর্ণ ক্ষমতা দিয়েছে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে। তাই এখন থেকে বাংলাদেশি নাগরিক না হয়েও কেউ ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলে এর দায় পড়বে নিবন্ধন কর্মকর্তারা ওপরেই।

এ অবস্থায় তাদের সুপারিশ রয়েছে-ভোটার তালিকা আইনের যথাযথ প্রয়োগের। এক্ষেত্রে ভোটার তালিকা প্রণয়নের সব সরঞ্জাম উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছেই রাখতে বলা হয়েছে।

ভোটার তালিকা প্রণয়নে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি হলেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা। যিনি নিবন্ধন কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেন। এক্ষেত্রে ভোটার করার সরঞ্জাম-ল্যাপটপ, স্ক্যানার, সিগনেচার প্যাড, ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার, ক্যামেরা, চোখের আইরিশ নেয়ার মেশিন; নিবন্ধন কর্মকর্তার কার্যালয়ে তার তত্ত্বাবধানে রাখার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এছাড়া সব কর্মকর্তাকে তাদের নিজস্ব ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড নিজেদেরই ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।

ইসির জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ইতিমধ্যে দেশের সব উপজেলা/থানা নির্বাচন কর্মকর্তা, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে-রোহিঙ্গা অধ্যুষিত ৩২টি বিশেষ এলাকায় কেউ যাতে বিশেষ কমিটির সুপারিশ ছাড়া ভোটার হতে না পারে, সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

নিশ্চিত হতে হবে কার্যালয়ে আসা ব্যক্তির বাংলাদেশি নাগরিকত্ব। সব সরঞ্জাম নিজের কাছে রাখতে হবে। সার্ভারে ডাটা এন্ট্রি অপারেটরকে দিয়ে তথ্য আপলোড করানো যাবে না। আর এসব বিষয় তদারকি করতে হবে জেলা ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে।

এ বিষয়ে ইসির এনআইডি অনুবিভাগের পরিচালক (অপারেন্স) আবদুল বাতেন বলেন, সারাদেশের সব নিবন্ধন কর্মকর্তাকে সতর্ক থেকে কাজ করতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের পাসওয়ার্ড, ইউজার আইডি সংরক্ষিত রাখতে, সরঞ্জাম নিজেদের তত্ত্বাবধানে রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। রোহিঙ্গা ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলে, দায় নিবন্ধন কর্মকর্তা হিসেবে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এড়াতে পারবেন না।

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প  একজন যোদ্ধা এবং তিনি তাঁর দেশকে দারুণ ভালোবাসেন বলে মনে করছেন... আরও পড়ুন

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

ছি! কীভাবে এই দৃশ্যটি আমি দেখি! ফোনে ফোনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া সেই নির্মম... আরও পড়ুন

ফোনে ফোনে সামাজিক

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।