গ্রানাডায় মুসলিম শাসনের ইতিঘটনা

রিডার:: স্পেন

মঙ্গলবার, ১৩ আগস্ট, ২০১৯ ০২:১৯:১৪ অপরাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  

স্পেনে মুসলিম শাসনের সূচনা হয়েছিল ৭১১ সালে ৩০ শে এপ্রিল। আর এর সাতশো বছর পর ১৪৯২ সালে কলম্বাস আমেরিকা আবিষ্কারের সময় ইতি ঘটে স্পেনে মুসলিম শাসনের। ওই সাতশো বছরের মুসলিম শাসনামলে আইবেরিয়ান উপকূল পরিণত হয় সমস্ত ইউরোপের সংস্কৃতি ও সভ্যতার কেন্দ্র হিসেবে।

স্পেনে মুসলিমদের শাসনের সময় দেশটি সংস্কৃতির স্বর্ণযুগে পৌঁছে গিয়েছিল। এ বিষয়ে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্পেনে মুসলিম যুগকে প্রায়ই জ্ঞানচর্চার স্বর্ণযুগ বলা হয়। যেখানে গ্রন্থাগার, বিদ্যালয় ও হাম্মামখানা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো, আর সেই সাথে বিকাশ লাভ করেছিলো সাহিত্য, কবিতা এবং স্থাপত্যকলা।

এবার আসুন জানা যাক স্পেপে কীভাবে মুসলিমদের শাসনের অবসান ঘটতে থাকলো। তারিক বিন জিয়াদ স্পেনে জয় করলে মুসলিম শাসনের প্রতিষ্ঠিত হতে থাকে সেখানে। এর তিন-সাড়ে তিনশো বছর পর ১০০২ সালে ইবনে আবি আমিরের মৃত্যুর পরপরই মুসলিম স্পেনে বিশৃঙ্খলা নেমে আসে। সমগ্র উপদ্বীপ কম বেশি ৩৪টি ক্ষুদ্র স্বাধীন শাসককের হাতে চলে যায়। তারা একে অপরের স্বার্থ নিয়ে যুদ্ধে লিপ্ত ছিল।

নিজেদের মধ্যে এরকম অন্তকলহ লেগেই থাকলো তাদের। ফলে এর সুবিধা নিলো ক্যাথলিক রাজারা। তবে ইউসুফ বিন তাশফিন ১০৯০ সালে মরক্কো থেকে জিব্রাল্টার প্রণালী অতিক্রম করেন এবং আল মুরাবিদ বংশের প্রতিষ্ঠা করেন। মুরাবিদরা অল্প সময়ের জন্য হলেও আগের দাপট ও প্রতিপত্তির প্রকাশ ঘটাতে সক্ষম হয়।

কিন্তু আল মোহাদরা ইতিহাসের পাতায় সামনে চলে আসে ১১৪৭ সালে। তাদের সবচেয়ে বড় বিজয় ছিল ১১৯৫ সালে আলারকোসে খ্রিস্টান মিত্রবাহিনীকে পরাজিত করা। আভ্যন্তরীণ নানা কোন্দলের কারণে তারা জর্জরিত হয়ে পড়ে দ্রুত। ১২১২ সালে লে নাভাস দে তলোসার যুদ্ধে পরাজিত ও উচ্ছেদ হয়।

এদিকে ১৩৯১ সাল থেকে গ্রানাডা জৌলুস ফিরে পেতে শুরু করে। এসময় পুরো আইবেরিয়ান পেনিনসুলায় গ্রানাডার অবস্থা দাঁড়ায় নিঃসঙ্গ। এজন্য তা মূলত অন্যান্য অঞ্চল থেকে আসা সর্বহারা মানুষদের অভিবাসন কেন্দ্রে পরিণত হয়। যারা এসেছিল আলমেরিয়া, সেভিল, সারাগোসা কিংবা ভ্যালেন্সিয়ার মতো নগরী থেকে। পরিণামে গ্রানাডার লোকসংখ্যা বেড়ে গেল কয়েকগুণ। শিল্প-সংস্কৃতির বিকাশ ঘটলো।

 

 

ওদিকে আবার ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের ফার্দিনান্দ এবং ক্যাস্টিলের ইসাবেলার বিয়ে হলে তাদের ক্ষমতা সৃসংহত হয়। তখন গ্রানাডার শাসক আবুল হাসান। ক্যাথলিকরা ১৪৮২ সালে দক্ষিণ-পশ্চিম গ্রানাডায় সিয়েরা দে আল হামাহর তীরে অবস্থিত হামাহ দুর্গ দখল করে নেয়। ওই দুর্গ বার বার পুনঃদখলের চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হন আবুল হাসান।

আবুল হোসেনের পর তার পুত্র মুহম্মদ আবু আব্দুল্লাহ মায়েল প্ররোচনায় গ্রানাডা অধিকার করেন। স্পেনীয় ইতিহাসে তিনি বোআবদিল নামে পরিচিত। ১৪৮৩ সালে বোআবদিল ক্যাস্টিলের অধিকারে থাকা লুসেনা আক্রমণ করে পরাজিত ও বন্দী হন।

ছেলে বন্দী হলে বাবা আবুল হোসেন পুনরায় ক্ষমতায় আরোহন করেন। তবে ১৪৮৫ সালে ভাই মুহাম্মদ আল জাগালের কাছে ক্ষমতা ত্যাগ করেন তিনি। এদিকে বন্দী বোআবদিলকে ফার্দিনান্দ ও ইসাবেলা ক্ষয়িষ্ণু মুসলিম রাজ্যের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে থাকেন। ক্যাস্টিলের সৈন্যবাহিনী নিয়ে তিনি চাচার সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হন এবং ১৪৮৬ সালে রাজধানীর কিছু অংশ দখল করেন।

 

 

গ্রানাডায় চাচা ও ভাইপোর শাসনের ফলে তাদের দ্বন্দ্বেরে সুযোগ নেন ফার্দিনান্দ ও ইসাবেলা। তারা আলোরা, কাসার, বনিলা, রোন্ডা ও অন্যান্য শহরগুলো অধিকার করেন। পরবর্তীতে লোজা, আলমেরিয়া এবং মালাগা তাদের পদানত হয়। নাগরিকদের দাস হিসেবে বিক্রি করে দেওয়া হতে থাকে। প্রচন্ড অবরোধের মুখে সহায়হীন অবস্থায় আল জাগাল ১৪৮৭ সালে আত্মসমর্পণে বাধ্য হন।

এদিকে ১৮৯০ সালে ফার্দিনান্দ আবু আব্দুল্লা ওরফে বোআবদিলকে গ্রানাডা সমর্পন করতে আদেশ দেন। তদিন ধরে মিত্রতা ধরে রাখা আবু আবদুল্লাহ অস্বীকার করলেন। ফলশ্রুতিতে ৪০,০০০ পদাতিক এবং ১০,০০০ অশ্বারোহী সৈন্য নিয়ে ফার্দিনান্দ রওনা হন জবাব দিতে। ১৪৯১ সালে গ্রানাডাকে লন্ডভন্ড করে দেয় তার উন্মত্ত বাহিনী। প্রধান সেনাপতি মুসা বিন গাজানের নেতৃত্বে মুসলিম অশ্বারোহীরা প্রতিরোধ করার প্রবল প্রচেষ্টা চালায়। কিন্তু কোনো প্রকার সাহয্য না পাওয়ার কারণে ধীরে ধীরে স্তিমিত হয়ে আসে মুসলিমদের মনোবল ও শক্তি। অতঃপর ২রা জুন, ১৪৯২ সালে বোআবদিল আত্মসমর্পণ করেন।

এদিকে স্পেনে মুসলমানদের শক্তিশালী দুর্গটি দুই মাসের নিরুপায় ভাগ্য বিড়ম্বনার পর এক সন্ধির মাধ্যমে হস্তান্তর করে। দুর্গটি সন্ধির জন্য দশটি শর্ত জুড়ে দেওয়া হলো এবং ক্যাথলিকরা মেনে নিলেন।

দুই মাস অতিবাহিত হবার পরেও মিশর, তুরস্ক কিংবা অপরাপর মুসলিম রাজ্য থেকে কোনোপ্রকার সাহায্য এলো না। ক্যাস্টেলিয়গণ শহর অবরোধ করলে বোআবদিল আন্দ্রাক্স গমন করেন। পরে সেখান থেকে ফেজে নির্বাসিত হন। আবু আব্দুল্লাহ বিদায় নিলেন।

সন্ধির পরবর্তী সাত বছর পর্যন্ত ক্যাথলিক শাসক ফার্দিনান্দ ও ইসাবেলার সাথে মুসলিমদের সম্পর্ক স্বাভাবিক থাকে। কিন্তু ক্যাস্টিলীয় এই রাজা দ্রুত তার প্রতিশ্রুতির কথা বেমালুম ভুলে যায়।

জোরপূর্বক প্রজাদের ধর্মান্তরিত করতে শুরু করে। গ্রানাডায় রাশি রাশি আরবি বই আগুনে ফেলা হয়। ফ্রান্সিসকো জিমেনেজ দে সিসনেরস ১৪৯৮ সালে গ্রানাডার মুসলিমদের ধর্মান্তরিত করার উদ্দেশ্যে মিশনারী হিসেবে নিযুক্ত হন।

জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করায় পুরাতন গ্রানাডায় কিছু মরিস্কো বিদ্রোহ করে। এর প্রতিক্রিয়ায় আইন পাশ করানো হয় দুই বছরের মাথায়। হয় ধর্মান্তরিত হতে হবে, নাহলে অর্থদন্ড দিতে হবে। প্রতি বছর মাথাপিছু দশ স্বর্ণমুদ্রা কর দিতে হতো কিংবা খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করতে হতো। অনেকেই কর দিতে না পেরে ধর্মান্তরিত হবার পথ বেছে নেয়। ধর্মান্তরিত হলেও মিলতো তৃতীয় শ্রেণীর নাগরিক মর্যাদা।

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

শেষ কবে প্রযোজককে ক্ষতির হিসাব দিয়েছেন অক্ষয় কুমার নিজেই হয়তো বলতে পারবেন না। টানা পাঁচ... আরও পড়ুন

উপহার দিয়ে আসছেন

বিশ্বের সর্বচেয়ে বড় বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যামাজান প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জেফ বেজোসের... আরও পড়ুন

সিটি নির্বাচনে রাজধানীর গাবতলীতে গণসংযোগের সময়ে হামলার অভিযোগ করে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়ে নির্বাচন কমিশন... আরও পড়ুন

দিয়ে নির্বাচন কমিশন

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে সশস্ত্রবাহিনীকে মাঠে নামাবে না নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গতকাল মঙ্গলবার... আরও পড়ুন

বৈঠক শেষে নির্বাচন

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচন অংশগ্রহনমূলক, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হবে... আরও পড়ুন

প্রকাশ করেছেন মার্কিন

চট্টগ্রাম-৮ আসনে ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটা পুনর্র্নিবাচনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ... আরও পড়ুন

আমীর খসরু

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার না করে... আরও পড়ুন

ব্যবহার না করে ব্যালট পেপারে ভোটগ্রহনের

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দিন ১ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনি এলাকার শিল্প কারখানা... আরও পড়ুন

নির্বাচন কমিশন (ইসি)

বিভিন্ন সংগঠনের দাবির মুখে অবশেষে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ৩০ জানুয়ারি পরিবর্তে... আরও পড়ুন

আগামী ১ ফেব্রয়ারি

সরস্বতী পূজা এবং ভোট নিয়ে যাতে কোন ধরণের সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি তৈরি না হয়-সেটি বিবেচনায় নিয়ে... আরও পড়ুন

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।