গুহা থেকে উদ্ধারের পর এই প্রথম জনসম্মুখে থাই কিশোররা

বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই, ২০১৮ ০১:৫২:৩২ পূর্বাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  

রিডার::থাইল্যান্ড

যেদিন প্রথম ডুবুরিকে দেখলাম, ‘‘মূহুর্তটা ছিল জাদুকরি।পথ তৈরী করতে আমরা পাথর ঘষছিলাম।আর এরই মধ্যে কারও কন্ঠ শুনতে পেলাম। একটু পর তাকে দেখতে পেলাম। দেখতে বিদেশী মনে হওয়াতে বললাম- ‘হ্যালো’ সেই ডুবুরিকে বলেছিলাম।’’ থাইগুহায় আটকে পরা ১৪ বছর বয়সী আদুল সাম-অন সাংবাদিক সম্মেলনে মঞ্চে দাঁড়িয়ে সেই বর্ণনা দিচ্ছিল।

থাইল্যান্ডের থাম লুয়াং গুহায় টানা ১৭ দিন আটকা থাকার পর উদ্ধার হওয়া ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের ফুটবল কোচকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় বুধবার।এর পর পরই সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়ে ছেলেরা শুনিয়েছেন সেই দিনগুলির গল্প।

গুহা থেকে উদ্ধার হওয়ার পর এই প্রথম বুধবার সংবাদমাধ্যমের সামনে আসলো।জানালো, সেই দিনগুলোর কথা কিভাবে শুধু বৃষ্টির পানি পান করে গুহাতেই বেঁচে থেকেছে তারা।

জলমগ্ন অন্ধকার গুহায় দশদিন কেবল পানি পানে করে সময় পার করেছে ছেলেরা।

ছেলেদের সংবাদ সম্মেলন উপলক্ষে থাই চিয়াং রাই হাসপাতালের একটি হলরুমকে ফুটবলে মাঠের আকারে সাজিয়ে দেওয়া হয়েছিল।আর চারপাশটা ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল বহু ফুটবল।বাদ যায়নি গোলপোস্ট। এই ছেলেরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বিশ্বকাপ ফুটবলে ফিফা সভাপতির নিমন্ত্রণ পেয়েও যেতে পারেনি।

হাসি মুখে ছেলেরা সেই সাংবাদিক সম্মেলন ঘরে প্রবেশ করে।তাদের পরনে ছিল তাদেরই ফুটবল দল ওয়াইল্ড বোরসের জার্সি।এসময়টায় তাদের সঙ্গে চিকিৎসব, স্বজন ও বন্ধুদের দেখা গেছে।

এক পর্যায় ছেলেদের একজন বলে ফেলে — সবাই বলি, লড়াই করো, হাল ছেড়ো না।

টি নামের আরেক কিশোর বলেছে, তারা শুধু বৃষ্টির পানি পান করেছিল। আর কোন খাবার তাদের সঙ্গে ছিল না।

সবচেয়ে ছোট টিটান বলেছে, আমি খাবারের কথা একদম ভাবতে চাইনি।ওতে আরও ক্ষিদে পায়।

 

 

ছেলেদের সঙ্গে থাকা এক্কাপাল চানতাওয়াং(২৫) জানায়, নিরাপত্তা কর্মীরা আমাদের খুঁজে পাবে, এমন ভাবার সুযোগ আমাদের ছিল না।আমরা পথ খুঁজে পেতে নিজেরা পথ খনন করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু আশা ছাড়িনি।

একপর্যায় ছেলেরা কষ্ট পাচ্ছিল আর ভাবছিল, তাদের নিজেদের কারণে তারা আটকা পরেছিল ।তাদের পরিবারও কষ্ট পাচ্ছে।

তবে সেই কিশোরদের কিছু সময় বৌদ্ধ ভিক্ষু হিসেবে কাজ করতে হবে।

থাই রীতি অনুযায়ী, কোন দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়ার পর মানুষ স্বল্প সময়ের জন্য ভিক্ষুর ভূমিকা পালন করেন।

বাড়ি ফেরা আরেক কিশোর বলে ফেলে, ‘আমার ভয় হচ্ছে, বাড়ি যেতে। বাবা-মা নিশ্চই দারুন বকা দেবেন।’

ছেলেদের প্রশ্ন করতে গিয়ে সাংবাদিকদের বেশ বেগ পেতে হলেও পদ্ধতিটি ছিল অভিনব।সাংবাদিকদের প্রশ্নগুলো লিখিতভাবে জমা দিতে হয়েছে।সেগুলো মনোবিদের যাচাই শেষে  অনুমতি মিললে প্রশ্ন করা সম্ভব হয়েছে।

এদিকে চিকিৎসকরা অভিভাবকদের জানিয়েছেন, অন্তত এক মাস ছেলেদের সাংবাদিকদের কাছে কোন সাক্ষাৎকার না দিতে। যাতে ছেলেদের মনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া না হয়।যদিও তাদের শারীরিক অবস্থা ভাল তারপরেও তাদের মানসিক ভীতি কাটিয়ে উঠতে স্বাভাবিক আচরনের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

গুজবে কান দিয়ে রংপুরের যে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই শহিদুন্নবী জুয়েল আদতে ধর্মভিরু... আরও পড়ুন

আদতে ধর্মভিরু মুসলিম।

নভেম্বরের শুরুতেই নয়া প্রেসিডেন্ট পেতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডাকযোগে আগাম ভোট শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরই... আরও পড়ুন

ডাকযোগে আগাম ভোট

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।