খালেদা জিয়ার শুনানি শেষ::এখনই মিলছে না জামিন

রিডার::ফরিদ হোসেন::আপডেটেড

রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ১০:০৫:৩৩ পূর্বাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
আজ রবিবার শেষ

পাঁচ বছরের দন্ডপ্রাপ্ত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর শুনানি আজ রবিবার শেষ হয়েছে। নিম্ন আদালত থেকে এ মামলার যাবতীয় নথি আসার পর তার জামিন বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবেন হাইকোর্ট।

আজ বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের বেঞ্চ তার জামিন আবেদনের শুনানি শেষে এই আদেশ দেন।

শুনানির শুরুতে খালেদার আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘আবেদনকারীর বয়স ৭৩ বছর। তিনি শারিরীকভাবে বিভিন্ন জটিলতায় ভূগছেন। তিনি অসুস্থ। তিনি একজন নারী। এছাড়া এ আদালতের অনেক নজির রয়েছে লঘু সাজা হলে আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করার আবেদনের সময় জামিন আবেদন করা হয়। আদালত জামিন দিয়ে থাকেন। একারণে আমরা জামিন প্রার্থনা করছি। আমাদের সকল যুক্তি আবেদনে উল্লেখ করা আছে। সেগুলো বলে আদালতের সময় নষ্ট করতে চাচ্ছি না।’

তিনি বলেন, ‘গত ২২ ফেব্রুয়ারি আদালত দুদককে যুক্তিসংগত সময় দিয়েছেন। তাই আজ আদালতের কাছে জামিন দেওয়ার আর্জি জানাচ্ছি। ৪০৯/১০৯ ধারায় শাস্তি হয়েছে। তার বয়স, সামাজিক অবস্থান বিবেচনায় তিনি জামিন পেতে পারেন। আদালতের এখতিয়ার রয়েছে জামিন দেওয়ার।’

এরপর জামিন আবেদনের বিরোধিতা করে শুনানি করেন দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। তিনি খালেদা জিয়ার আইনজীবীর যুক্তি একটি একটি খন্ডন করে পাল্টা যুক্তি দেখান।

তিনি বলেন, ‘লঘু সাজা হওয়ায় জামিন চাওয়া হয়েছে। কিন্তু আইনগতভাবে এটা কোনো যুক্তি হতে পারে না। সাবেক প্রধান বিচারপতি মো. সাহাবুদ্দিন আহমদের একটি রায় রয়েছে যে লঘু সাজা হলেই সে যুক্তিতে জামিন দেওয়া যাবে না। দুই বছর সাজা হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির জামিন আবেদনের বিষয়ে এ আশে দিয়েছিলেন আদালত। দুদকের আইনজীবী আরো কয়েটি উাহরণ দেন।

তিনি মেডিকেল গ্রাউন্ড হিসিবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের যুক্তি খন্ডন করে বলেন, আইনজীবীরা হলফনামা দিয়ে অসুস্থতার কথা বলেছেন। কিন্তু সপক্ষে কোনো সনদ দেননি। তিনি বলেন, এ পরিস্থিতিে জামিন না দিয়ে রেকড আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করা হোক।

আর আদালত মেডিকেল সনদ চাইতে পারেন। সে রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত জামিন না দেওয়ার আরজি জানাচ্ছি। তিনি বলেন, জামিন আবেদনকারী বয়স্ক নারী। এতে কোনো সন্দেহ নেই। তার বয়স ৭৩ বছর। এটাতো আদালতের রায়েই বলা আছে।

এসময় আদালত তার কাছে জানতে চানে যে খালেদা জিয়ার সাজা হয়েছে কয়টি ধারায়। জবাবে খুরশীদ আলম খান বলেন, ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা ও দন্ডবিধির ৪০৯/১০৯ ধারায় অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। কিন্তু আইন অনুসারে একটির বেশি ধারায় শাস্তি ওেয়া যায়না। একারণে ৪০৯/১০৯ ধারায় ৫ বছরের সাজা দেওয়া হয়েছে।’

এসময় আদালত দুদকের আইনজীবীর এ যুক্তির পাল্টা হিসেবে বলেন, ‘আপনার বক্তব্য সঠিক নয়। আমরা নথি থেকে আদেশের অংশে খেছি যে নিম্ন আদালতের রায়ে একটি ধারায় দোষি প্রমানিত হয়েছে ও একটি ধারাতেই সাজা হয়েছে।

এসময় দুদকের আইনজীবী বলেন, আদালতের রায়ের অভিমত অংশে দুটি ধারায় অভিযোগ প্রমানের কথা উল্লেখ আছে। এসময় তিনি সংশ্লিষ্ট অংশ পাঠ করেন।তিনি আরো বলেন, এ মামলায় ২০০৮ সালে খালো জিয়া হাজতে ছিলেন।

সেই হাজতবাস এবং গত ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের পর কারাগারে যাওয়ার পর আজ পর্যন্ত ২মাস ৫দিন জেল খাটা হয়ে গেছে। এই অল্প সময়ে জামিন দেওয়া ঠিক হবে না। যদিও জামিন দেওয়ার এখতিয়ার রয়েছে আদালতের।

এরপর অ্যাটর্নি জেনারেল জামিন আবেদনের বিরোধিতা করে বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে এটাই প্রথম মামলা যেখানে এতিমের টাকা আত্মসাত করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সেসময়কার রাষ্ট্রনায়ক বা রাষ্ট্রের নির্বাহী বিভাগের প্রধান হিসেবে খালেদা জিয়া এ দায় এড়াতে পারেন না। অ্যাটর্নি জেনারেল প্রধানমন্ত্রীর এতিমখানা তহবিল, ব্যাংক হিসাব খোলা, টাকা জমা হওয়া, টাকা তোলা, এফডিআর করাসহ রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তির পুরো ঘটনা সংক্ষেপে তুলে ধরে বলেন, মামলার বিচারকাল খালো জিয়া এসব ঘটনা অস্বীকার করেননি।’

তিনি আরও বলেন,  ‘তিনি (খালেদা জিয়া) শুধুই বলেছেন যে এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে ছিলেন না। তিনি কিছু জানতেন না। তার এ বক্তব্য সত্য নয়। তিনি সব জানতেন। রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে বা সরকারের প্রধান হিসিবেে তিনি এর দায় এড়াতে পারেন না ‘

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘তাছাড়া তিনি যে বাসায় থাকতেন, সেই বাসাতেই তার বড় ছেলে তারেক রহমান থাকতেন। এই মামলায় টাকা আত্মসাতকারীরে একজন তারেক রহমান। সুতরায় খালেদা জিয়া জানতেন না বলে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সত্য নয়। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, এই মামলার নথি আসার পর শুনানি করা প্রয়োজন। তিনি বলেণ, বিডিআর মামলায় সুপ্রিম কোর্ট নিজস্ব ব্যস্থাপনায় দ্রুত পেপারবুক তৈরি করেছে। আধুনিক মেশিন রয়েছে। তাই আপিল শুনানির উদ্যোগ নেওয়া হোক। একমাসের মধ্যে আপিল নিষ্পত্তি করা হোক।’

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া মামলায় বিচারে কালক্ষেপন করেছেন। নিন্ম আদালতে নয়বছরের বেশি সময় নিয়েছেন। অথচ আদালতের বিরুদ্ধে াভিযোগ দিয়েছেন যে রকেট গতিতে বিচার চলছে। খালেদা জিয়ার এ বক্তব্য অসত্য।

তার প্রমান নিম্ন আদালতের রায়েই বলা হয়েছে যে এ মামলায় ২৩৭ কার্যদিবস বিচার হয়েছে। এরমধ্যে একশ ৯বার সময় নিয়েছেন খালেদা জিয়া। আর বিভিন্ন অজুহাতে ৩২ বার উচ্চ আদালতে এসেছে।

তাই একমাসের মধ্যে আপিল নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেওয়া হােক। এরপর জামিন বিষয়টি আসবে। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের ৫ বছল জেল হয়েছিল। তিনি সাড়ে তিনবছর জেল খাটার পর বের হয়েছেন।

একজন রাষ্ট্রপ্রধান যদি এতদিন কারাগারে থাকতে পারেন তাহলে আরেকজন কেন জেল খাটবেন না।’

এসময় আদালত বলেন, ‘এটা কোনো যুক্তি হতে পারে না। একজন জেল খেটেছে বলে আরেকজনকে জেল খাটতে হবে-এটা কোনো যুক্তি নয়।
জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, নিম্ন আদালতে বিচার শেষ করতে ৯ বছরের বেশি লাগছে। এখানে জামিন দিলে আর আপিল শুনানি করবে না।
আদালত বলেন, তারা না করলেও উভয়ক্ষই দ্রুত শুনানির উদ্যোগ নিতে পারেন।’

অ্যাটর্নি জেনারেল ভারতের লালু প্রসাদ জাদবের কারাগারে যাবার বিষয়ে সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখিয়ে বলেন, ‘দুর্নীতি মামলায় লালু প্রসাদ জাদবকে কারাগারে যেতে হয়েছে। এরশাদের জনতা টাওয়ার মামলার নজির আমাদের সামনে রয়েছে।’

আদালত বলেন, ‘ওই মামলার নথিতো আমাদের সামনে নেই। জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ওই মামলার নথি তলব করুন।’

এসময় আদালত বলেন, ‘এ নথি আমরা আনবো কেন? আদালত আরো বলেন, এক সরকার প্রধান জেল খেটেছে বলে এরকজনকে কারাগারে থাকতে হবে এটা শুনানির কোনো যুক্তি হতে পারে না। এটা টকশোর বক্তব্য হতে পারে। কে কোন কুল গাছ লাগালো, কে কুল খেলো তা আদালতের দেখার বিষয় নয়। এখানে দেখার বিষয় হলো জনতা টাওয়ার মামলায় এরশাদ জামিন চেয়েছিল কীনা?

অ্যাটর্নি জেনারেল বিএনপির যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর একটি বক্তব্য আদালতে উপস্থাপন করে বলেন, ‘রিজভী বলেছে বিচারক আখতারুজ্জামানকে রেহাই দেবে না। তাই এজন্য রিজভীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া রকার। আদালতের কাছে আদেশ চাচ্ছি।’

এসময় আদালত বলেন, ‘তা কেন করবো। পত্রিকায় কত কিছু লেখা হয়। তা দেখে আদালত চালালে হবে না। আমরাতোে দেখি যার পক্ষে রায় যায় তিনি বলেন ঐতিহাসিক রায়। আর যার বিপক্ষে যায় তিনি বলেন রায় ফরমায়েশি।

রাজনীতিবীদরাতো বলেন ‘কেন, রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। আইনজীবী আর রাজনীতিবীদদের একই অবস্থা। তিনি জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট মামলার নি আসার পর জামিন শুনানি করার আরজি জানান।’

এরপর এজে মোহাম্মদ আলীকে উদ্দেশ্য করে আদালত বলেন, ‘দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষ বিভিন্ন উদাহারণ দিয়েছে। জামিন না দেওয়ার স্বপক্ষে আদালতের আদেশ দেখিয়েছেন।

আপনার কাছে এরকম কোনো নজির আছে কীনা? জবাবে এজে মোহাম্মদ আলী বলে, আদালতে অনেক নজির রয়েছে। আপিল অ্যাডমিশনের সময় কম সাজার ক্ষেত্রে জামিন দেওয়া হয়। আমরাও তাই চাচ্ছি। আদালতের এখতিয়ার রয়েছে। এসময় তিনি একটি হত্যা মামলায় জামিন দেওয়ার নজির তুলে ধরেন। বো ২টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত শুনানি হয়।

এরপর দুই বিচারপতি বেশ কয়েক মিনিট নিজেরে মধ্যে সলাপরামর্শ করেন। তারপর আদালত আদেশ দিয়ে এজলাস থেকে নেমে যান।

 

 

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

গুজবে কান দিয়ে রংপুরের যে যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই শহিদুন্নবী জুয়েল আদতে ধর্মভিরু... আরও পড়ুন

আদতে ধর্মভিরু মুসলিম।

নভেম্বরের শুরুতেই নয়া প্রেসিডেন্ট পেতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডাকযোগে আগাম ভোট শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরই... আরও পড়ুন

ডাকযোগে আগাম ভোট

হাজী সেলিমপুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বহিস্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ... আরও পড়ুন

মোহাম্মদ জাহিদের তিন

টানা দশ ঘণ্টা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বসে আলোচনার পর আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সাময়িক যুদ্ধবিরতির... আরও পড়ুন

যুদ্ধবিরতির বিষয়ে

হঠাৎ করে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক মাধ্যমগুলোতে উদ্বিগ্ন আমজনতা। চলছে আন্দোলনও। দাবি উঠছে সর্বোচ্চ শাস্তি... আরও পড়ুন

ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায়

প্রায় চার মাস বাদে পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান... আরও পড়ুন

উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন করেছে... আরও পড়ুন

ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) উন্মোচন

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের পাঠানো একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস করেছে সৌদি এয়ার... আরও পড়ুন

বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন ধ্বংস

করোনা আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের আগে দেশটির ঐতিহ্য অনুযায়ী নির্বাচনী বিতর্ক... আরও পড়ুন

নির্বাচনী বিতর্ক

পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের... আরও পড়ুন

ধর্ষণের অভিযোগে চার শিশু

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।