কুকুর ও বানরে করোনা ভ্যাকসিনের সফল অক্সফোর্ড

রিডার::যুক্তরাজ্য

শুক্রবার, ১৫ মে, ২০২০ ০৭:২৬:৫২ অপরাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের তৈরি নভেল করোনাভাইরাসের একটি ভ্যাকসিন কুকুর ও বানরের দেহে পৃথক পৃথকভাবে প্রয়োগে আশাব্যঞ্জক ফল মিলেছে। মানবদেহে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা এই ভ্যাকসিন বানরের ওপর কেমন প্রতিক্রিয়া দেখায় সেটা জানতে পরীক্ষা চালানো হয়।

ভ্যাকসিন দেয়ার পর বানরের শরীরে করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে প্রবেশ করানো হলেও সেটি সংক্রমণ ঘটাতে পারেনি বলে দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা।

গবেষকরা সম্ভাব্য করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনটি স্বল্প সংখ্যক বানরে পরীক্ষা করে আশাব্যঞ্জক লক্ষণ দেখতে পেয়েছেন। ছয়টি রিসাস মাকাককে বানরের শরীরে বর্তমানে মানুষের মধ্যে পরীক্ষা করা ভ্যাকসিনের অর্ধ ডোজ দেওয়া হয়েছিল।

এছাড়া, ইঁদুরের শরীরের ভ্যাকসিনটি প্রয়োগ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে কয়েকটি প্রাণী টিকা দেওয়ার ১৪ দিনের মধ্যে ভাইরাসটির বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি করেছিল এবং ২৮ দিনের মধ্যে সবকটির মধ্যেই অ্যান্টিবডি তৈরির প্রমাণ পাওয়া যায়।

গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে, একক টিকাদানের ডোজও প্রাণীগুলোর ফুসফুসের ক্ষতি প্রতিরোধে কার্যকর ছিল। করোনাভাইরাসের সংক্রমণে যে অঙ্গগুলো মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হতে পারে টিকাদানের পরে সেগুলোতে ক্ষতি হতে দেখা যায়নি।

গবেষকরা লিখেছেন, আমরা অন্য প্রাণীদের তুলনায় সার্স-কোভি -২ এর সাথে চ্যালেঞ্জ করা ভ্যাকসিন দেওয়া প্রাণীদের মাঝে ব্রঙ্কোয়েলভোলার ল্যাভেজ ফ্লুইড এবং শ্বাস নালীর টিস্যুগুলোতে ভাইরাসটির উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পাওয়া লক্ষ্য করেছি এবং টিকা নেওয়া রিসাস ম্যাকাকসে কোনো নিউমোনিয়ার লক্ষণও দেখা যায়নি।

গুরুত্বপূর্ণভাবে, টিকা দেওয়া প্রাণীগুলোতে ভাইরাল চ্যালেঞ্জের পরে প্রতিরোধ ক্ষমতা-বাড়ানোয় রোগের কোনো প্রমাণ পরিলক্ষিত হয়নি।

গবেষকরা আরো দেখতে পেয়েছেন যে, নিম্ন শ্বাসযন্ত্রের সিস্টেমে ভাইরাসের সংক্রমণ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে। শ্বাস নালীর নীচে ভাইরাসের প্রতিলিপি তৈরি প্রতিরোধের করতেই টিকা দেওয়া হয়।

তবে ফুসফুসে ভাইরাসের বংশ বিস্তার রোধ করা গেলেও নাক থেকে ভাইরাল বর্ষণ কমানো লক্ষ্য করা যায়নি।

লন্ডন স্কুল অফ হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের ফার্মাকোসপিডেমিওলজি বিভাগের অধ্যাপক স্টিফেন ইভান্স বলেছেন, ফলাফলগুলো খুবই স্পষ্টভাবে একটি সুসংবাদ দিচ্ছে। আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সন্ধানটি হল ভাইরাল লোড এবং পরবর্তী নিউমোনিয়ার ক্ষেত্রে যথেষ্ট কার্যকারিতার সংমিশ্রণ। তবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর কোনো প্রমাণ নেই।

তিনি আরো বলেন, যে মাকাকের ফলাফলগুলো মানুষের মধ্যে একইভাবে প্রতিফলিত হবে কিনা তা জানা যায়নি, তবে এই ফলাফলগুলো দেখে উৎসাহিত হওয়াই যায়। অক্সফোর্ডে তৈরি এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষা মানুষের মধ্যে সম্পন্ন হওয়ার বিষয়ে সতর্ক আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।

এই পাতার আরও খবর

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

ঐতিহাসিক আল-আকসা মসজিদ খুলে দেওয়া হয়েছে। করোনাভাইরাসের এই দুর্যোগে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল মসজিদটি। দুই... আরও পড়ুন

মসজিদ খুলে দেওয়া

ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ওপর থেকে সর্বশেষ নিষেধাজ্ঞা ছাড় বাতিল করায় যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়ার... আরও পড়ুন

আইনগত পদক্ষেপ

এক করোনা ভাইরাসের মহামারীতে কুপোকাত গোটা বিশ্ব। মাত্র পাঁচ মাসের ব্যবধানে অন্তত ৬০ লাখ মানুষ... আরও পড়ুন

সম্প্রতি চীনের একটি

এবছর এসএসসি ও সমমানের ৮২ দশমিক ৮৭ ভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ... আরও পড়ুন

সকালে গণভবন থেকে

সিকদার গ্রুপের এমডি রন হক সিকদার ও তার ভাই দীপু হক সিকদারের ক্ষেত্রে কোনো ভ্রমণ... আরও পড়ুন

বিদেশে ভ্রমণে নিয়ম

২৫ মে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর মিনিয়াপলিসে পুলিশের হাতে জর্জ ফ্লয়েড নামে এক কৃষ্ণাঙ্গ নির্মমভাবে... আরও পড়ুন

কৃষ্ণাঙ্গ নির্মমভাবে

মুক্তির ৬৭ দিনের মাথায় দলের জেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ এবং ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন বেগম খালেদা... আরও পড়ুন

ফিরোজায় স্বাস্থ্যবিধি

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ হ্রাসে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত লকডাউন বাড়াতে যাচ্ছে ভারত সরকার। সেই সঙ্গে... আরও পড়ুন

শপিংমল খোলারও

করোনা ভাইরাসে প্রকোপ থেকে বাঁচতে টানা ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে আগামীকাল রবিবার থেকে সীমিত... আরও পড়ুন

অফিস খুললেও সর্বোচ্চ আদালত সহসাই খুলছে

২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত ২৮জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।আজ শনিবার সকাল ৮টা অবদি ৬১০জনের মৃত্যু হয়েছে।... আরও পড়ুন

নতুন শন্যাক্ত হয়েছে ১

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সোয়াতে মালালা

ছয় বছর আগের ইতিহাসটা ছিল একটু ভিন্ন। পাকিস্তানের সোয়াত এলাকার মালালাকে তেমন কেউ জানতো না। কেবল মেয়েদের স্কুলে যাওয়া নিয়ে তালেবান নিষেধাজ্ঞার উপর প্রতিবাদ জানিয়েছিল ১৩ বছরের এক রত্তি মেয়েটি। বাধার মুখেও স্কুলে যাওয়ার ব্যপারে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ মেয়েটিকে আটকাতে প্রথমে... আরও পড়ুন