করোনা ভ্যাকসিন দৌড়ে জয়ী হবে কে, চীন না ব্রিটেন?

রিডার::তানিম রহমান

বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই, ২০২০ ১০:০০:৪৩ পূর্বাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
কারণ এই এক মহামারীর

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে গোটা বিশ্ব লক ডাউনে ছিল মাসের পর মাস। এখনও বহু দেশে লক ডাউন চালু আছে। কারণ এই এক মহামারীর বিরুদ্ধে এখনও পর্যন্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি বিশ্বের মহারথিরা।দিনের পর দিন বিজ্ঞানীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে বৈশ্বয়িক এই মহামারীর বিরুদ্ধে পোক্ত ভ্যাকসিন তৈরীর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

মাস্ক পরা, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা বা সর্বোপরি লকডাউনের কঠোর নিয়ন্ত্রণ যে এই মারণ ভাইরাসের গতি রুখতে বেশি দিন কার্যকরী হবে না, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

বিশ্ব জুড়ে করোনা সংক্রমণে প্রায় দেড় কোটি মানুষ আক্রান্ত। করোনায় বিধ্বস্ত বিশ্ব তাই প্রতিষেধকের খোঁজে নিরন্তর কাজ করে চলেছেন গবেষকরা।

গবেষণাগারে একটি প্রতিষেধক তৈরির পর প্রথম যে ধাপের বাধা সামনে থাকে, তা হল প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল বা টেস্টিং। এই পর্যায়ে গবেষকরা প্রতিষেধকটি ইঁদুর বা বাঁদরের মতো প্রাণীর দেহে পরীক্ষামূলক ভাবে প্রয়োগ করেন। ওই প্রতিষেধকটি তাদের দেহে কোনও প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে পারে কি না!

প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পর শুরু হয় প্রথম পর্যায় (ধাপ-১) বা সেফটি ট্রায়াল। এই পর্যায়ে অত্যন্ত অল্প সংখ্যক ব্যক্তির উপরে প্রতিষেধক প্রয়োগ করা হয়। ওই ব্যক্তিদের দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হচ্ছে কি না, তা নজর রাখা হয়। এ ক্ষেত্রে ওই প্রতিষেধকটি ক্ষতিকর কি না, তা বুঝতে কম পক্ষে তিন মাস অপেক্ষা করতে হয়।

প্রথম পর্যায়ে সফল হলে, প্রতিষেধকটির পরবর্তী পর্যায় (ধাপ-২) বা এক্সপ্যান্ডেড ট্রায়াল চালানো হয়। এই ধাপে শিশু, বৃদ্ধ, অসুস্থ মানুষদের ভিন্ন ভিন্ন ভাগে ভাগ করে ১০০ জন রোগীর দেহে প্রতিষেধক প্রয়োগ করা হয়। এ ক্ষেত্রে প্রতিষেধকটি কতটা নিরাপদ এবং তা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে সক্ষম কি না, তা দেখা হয়।

এই ধাপে সাধারণত তিন মাস অপেক্ষা করা হয়। আক্রান্তেরা সুস্থ হচ্ছেন কি না, বা শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে কি না, তা-ও দেখা হয় এই ধাপে।প্রথম দুই ধাপ পার হওয়ার পর তৃতীয় পর্যায় (ধাপ-৩) বা এফিকেসি ট্রায়াল শুরু করা হয়। এ ক্ষেত্রে হাজার জনের উপর প্রয়োগ চলে প্রতিষেধকটির। এই পর্যায়েও সাধারণত থাকে তিন মাসের অপেক্ষা। কত জন সংক্রমিত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠলেন, তা দেখা হয় এই ধাপে।

প্রথম তিন পর্যায়ে পরীক্ষণের পর আসে চতুর্থ পর্যায় (ধাপ-৪)। এই ধাপের ফলাফল দেখে টিকা তৈরির ছাড়পত্র দেয় প্রতিটি দেশের নিয়ামক সংস্থা। প্রতিটি ধাপের ফলাফল খতিয়ে দেখে তা পর্যালোচনা করে সন্তুষ্ট হলে তবেই পাওয়া যায় ছাড়পত্র। তবে মহামারীর পরিস্থিতিতে আনুষ্ঠানিক ছাড়পত্র পাওয়ার আগেই অনেক সময় প্রতিষেধকের প্রয়োগ করা যেতে পারে।

এ ছাড়া, প্রতিষেধক দ্রুত তৈরিতে চারটি ধাপ সংযুক্ত ভাবে চালানো যেতে পারে।চলতি বছরের জানুয়ারিতে করোনাভাইরাসের জিন বিশ্লেষণের কাজ শুরু হয়। এর পর মানবদেহে কোভিড প্রতিষেধকের প্রথম ট্রায়াল হয় গত মার্চে। এর পর থেকে বার বার পরীক্ষা নিরীক্ষা চলেছে। তবে চূড়ান্ত সাফল্যের জন্য আরও কয়েক মাস আমাদের অপেক্ষা করতেই হবে।

চীনের উহান শহর থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে। করোনার ভ্যাকসিন তৈরীতে সেই চীনও অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে। চীনের ক্যানসাইনো বায়োলজিক্যাল ইনকর্পোরেশন এবং বেজিং ইনস্টিটিউট অব বায়োটেক-এর তৈরি কোভিড প্রতিষেধক শেষ অর্থাৎ তৃতীয় পর্যায় (ধাপ-৩)-এ পরীক্ষাধীন রয়েছে।

ক্যানসাইনো-র ভ্যাকসিন এই মুহূর্তে অনুমোদনের প্রক্রিয়ায় রয়েছে।চীনের অন্যান্য গবেষণা সংস্থাগুলিও জোরকদমে ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছে। সে দেশের উহান ইনস্টিটিউট, সিনোফার্মের টিকা রয়েছে দ্বিতীয় ধাপে। অন্য দিকে, তৃতীয় ধাপে রয়েছে সিনোভ্যাক বায়োটেক এবং ইনস্টিটিউটো বুট্যানটান, রয়েছে বেজিং ইনস্টিটিউট অব বায়োলজিক্যাল প্রোডাক্টস, সিনোফার্মের মতো সংস্থার ভ্যাকসিন।

করোনা ভ্যাকসিনের কাজে চীন ছাড়াও সফল হওয়ার পথে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। চীনের মতোই অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় বায়োফার্মা কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা-কে সঙ্গে নিয়ে করোনা-প্রতিষেধক তৈরি করছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও জুন মাসে জানিয়েছিল, করোনার প্রতিষেধকের ক্ষেত্রে সব চেয়ে বেশি আশার আলো দেখাচ্ছে ‘অ্যাস্ট্রাজেনেকা’র এজেডডি১২২২ ভ্যাকসিন। এটি এখন তৃতীয় ধাপে রয়েছে।

এ ছাড়া, লন্ডনের ইম্পিরিয়াল কলেজের টিকা রয়েছে দ্বিতীয় ধাপে।

চীন বা ইংল্যান্ডের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থাগুলিও ভ্যাকসিন তৈরির কাজে আশার আলো দেখাচ্ছে। আমেরিকার নোভাভ্যাক্স, মডার্না ভ্যাকসিন তৈরিতে উল্লেখযোগ্য নাম। নোভাভ্যাক্সের টিকা এখন রয়েছে দ্বিতীয় ধাপে। অন্য দিকে, মডার্নার তৈরি টিকা তৃতীয় পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে।

এশিয়া বা আমেরিকার পাশাপাশি ইউরোপেও চলছে করোনা ভ্যাকসিন তৈরীর কাজ। জার্মানির বায়োএনটেক, ফোজান ফার্মা এবং ফাইজারের টিকা এখন রয়েছে দ্বিতীয় ধাপে।

অস্ট্রেলিয়ার ভ্যাক্সিন পিটিওয়াই লিমিটেডের তৈরি প্রতিষেধক রয়েছে প্রথম ধাপে।করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখে গোটা বিশ্বে রাশিয়া রয়েছে প্রথম পাঁচের মধ্যে।

ভ্যাকসিন তৈরীর দৌড়ে থেমে নেই রাশিয়াও । সেখানকার সেচনেভ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, তাঁদের তৈরি ভ্যাকসিন এই মুহূর্তে দ্বিতীয় পর্যায়ে রয়েছে।

ভারতেও দ্রুত গতিতে চলছে কভিড ভ্যাকসিনের তৈরীর প্রচেষ্টা। কেন্দ্রীয় সরকারের দাবি, করোনা প্রতিষেধকের দৌড়ে সব দেশকে ছাপিয়ে যেতে পারে ভারত। ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছেন, আগামী ১৫ অগস্টের মধ্যে বাজারে আসবে করোনার ভ্যাকসিন। যদিও এত দ্রুত তা সম্ভব কি না, সে নিয়ে জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে।

তবে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর) জানিয়েছে, হায়দরাবাদের ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড (বিবিআইএল)-এর সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে ওই প্রতিষেধক বাজারে আনছে তারা। প্রতিষেধক তৈরির কাজে ভারত বায়োটেক-এর পাশাপাশি দৌড়ে রয়েছে জাইডাস ক্যাডিলার মতো সংস্থা।

তবে দেশীয় প্রতিষেধকটি এখন প্রথম ধাপেই রয়েছে।বিভিন্ন ধাপ পেরিয়ে তৈরি করা হলেও সব প্রতিষেধক যে একই ধরনের হয়, তা নয়। প্রতিষেধকেরও বিভিন্ন ধরন রয়েছে। যে সমস্ত প্রতিষেধক জেনেটিক, তা এক বা একাধিক করোনাভাইরাসের নিজস্ব জিন ব্যবহার করে তৈরি করা হয়। এই ধরনের প্রতিষেধকের কাজ মানবদেহের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে পরীক্ষা করা।

প্রতিষেধকের বিভিন্ন ধাপ বা ধরন সম্পর্কে জানা গেলেও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন, কোন দেশের ভ্যাকসিন দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাজারে মুখ দেখাবে?

এই মুহূর্তে প্রতিষেধক তৈরিতে সামনের সারিতে রয়েছে চীন এবং ব্রিটেন। তবে যে কোনও মুহূর্তে এই প্রতিযোগিতার রং বদলে যেতে পারে। পুরো বিষয়টিই নির্ভর করছে মানবদেহে পরীক্ষার পর সেই প্রতিষেধকের ফলাফলের উপর।

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

এখন থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো গ্রাহকদের কাছ থেকে ক্রেডিট কার্ড বাবদ কুড়ি শতাংশের বেশি সুদ আদায়... আরও পড়ুন

ক্রেডিট কার্ড বাবদ কুড়ি শতাংশের

সৌদি আরবের বর্তমান বাদশাহ সালমান বিন আবদুলাজিজ আল সৌদের রাজ সিংহাসনে পদাসীন হওয়ার আগে যাঁরা... আরও পড়ুন

রাজ সিংহাসনে পদাসীন

মার্কিন টাইম সাময়িকীতে বছরের সেরা প্রভাবশালীর তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন আর্টিকেল-ফিফটিন খ্যাত অভিনেতা আয়ুষ্মান খুরানা।... আরও পড়ুন

টাইম সাময়িকীতে

যোগ্য নেতৃত্ব মৃত্যুর আগেই নাকি ঠিক করে গেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রয়াত আমির আল্লামা আহমদ... আরও পড়ুন

যোগ্য নেতৃত্ব বেঁচে থাকতেই

ঢাকায় ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেলের পরীক্ষা নেবে বলে ঘোষণা দিয়েছে ব্রিটিশ কাউন্সিল।... আরও পড়ুন

‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেলের

উত্তরাধিকার সূত্রে তিনি পতৌদির নবাব কন্যা।বাবা বি-টাউনের অভিনেতা সাইফ আলি খান, মা অভিনেত্রী অমৃত সিং।... আরও পড়ুন

পতৌদির নবাব কন্যা

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনে ইরানের ব্যাপারে কঠোরতম সমাধান চেয়েছেন সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন... আরও পড়ুন

ইরানের ব্যাপারে কঠোরতম

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে গেলে যে তিনি দেশটির রাজনৈতিক ঐতিহ্য... আরও পড়ুন

শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর

মালয়েশিয়ায় শিগগিরই নয়া সরকার গঠনের দাবি করেছেন দেশটির বিরোধীদলীয় নেতা আনোয়ার ইব্রাহিম। প্রধানমন্ত্রী মুহিদ্দিন ইয়াসিনকে... আরও পড়ুন

নয়া সরকার গঠনের দাবি

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়াতে দেশটির আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের প্রচারণায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডেমোক্রেটের জো বাইডেনের কঠোর সমালোচনা... আরও পড়ুন

জো বাইডেনের কঠোর সমালোচনা

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

কেমন আছেন পুতিন কন্যা?

গেলো বছরে শেষ করোনা ভাইরাসের প্রকোপ শুরু হয়েছিল চীনে। চলতি বছরে ছড়িয়ে গোটা বিশ্বে। সেই এক ভাইরাসের জেরে এখনও ধুকছে বিশ্ব। কোনও প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় বিশ্বের ২১৫টি দেশ ও অঞ্চলে একযোগে এই ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। বিশ্বজুড়ে তাণ্ডব... আরও পড়ুন

প্রতিরোধে ভ্যাকসিন

ডিসেম্বরে করোনার ভ্যাকসিন আনবে গ্লোব বায়োটিক

বড় কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতার শিকার না হলে ট্রায়াল শেষে এই বছরের শেষে অর্থাৎ ডিসেম্বরেই করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিন বাজারে আনতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন গ্লোব বায়োটেক রিসার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রধান ড. আসিফ মাহমুদ। আজ শনিবার বাংলা রিডারের সঙ্গে ভাইরাস... আরও পড়ুন

সময়ের মধ্যে সফল হতে

চীনের করোনা ভ্যাকসিন হবে আমজনতার

চীনের তৈরী করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন হবে সর্বসাধারণের পণ্য। তবে এই ক্ষেত্রে চীনকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সফল হতে হবে। আজ রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এমনটি বলেছেন চীনের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ওয়াং জিগাং। সংবাদ সম্মেলনে ওয়াং জিগাং বলেন, মহামারীর এ সংকটকালীন... আরও পড়ুন