উইঘুর কারা?

রিডার:: ইসরাত জাহান

রবিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৯:৪৫:৩৮ পূর্বাহ্ন
  •  
  •  
  •  
  •  
প্রাচীন সিল্ক রোডের পাশে

উইঘুর জাতির ইতিহাস প্রায় ৪ হাজার বছর আগের। মূলত, এরা স্বাধীন পূর্ব তুর্কিস্তানের অধিবাসী। পূর্ব তুর্কিস্তান প্রাচীন সিল্ক রোডের পাশে অবস্থিত মধ্য এশিয়ার একটি দেশ, যার চতুর্পাশ্বে চীন, ভারত, পাকিস্তান, কাজাখস্তান, মঙ্গোলিয়া ও রাশিয়ার অবস্থান। এ অঞ্চলের বেশির ভাগ দেশই উইঘুর সম্প্রদায়ের বাস রয়েছে।

সিআইএর ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্ট বুক অনুযায়ী চীনের মোট জনসংখ্যার ১ থেকে ২ শতাংশ মুসলিম। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা প্রতিবেদনে দেখা যায়, মুসলিমরা চীনা জনসংখ্যার ১ দশমিক ৫ শতাংশ।

 

আরও পড়ুন

 

২০০৯ সালের এক হিসাব অনুযায়ী, এসব দেশের মধ্যে চীনের জিনজিয়াংয়ে ১ কোটি ২০ হাজারের উইঘুর লোক বসবাস করে। কাজাখস্তানে ২ লাখ ২৩ হাজার, উজবেকিস্তানে ৫৫ হাজার, কিরগিজস্তানে ৪৯ হাজার, তুরস্কে ১৯ হাজার, রাশিয়ায় ৪ হাজার, ইউক্রেনে ১ হাজারের মতো উইঘুর লোক বাস করে।

 

 

বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকেও প্রাচীন এ সম্প্রদায়ের লোকদের উইঘুর না বলে বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন নামে ডাকা হতো। মূলত, ১৯২১ সালে উজবেকিস্তানে এক সম্মেলনের পর উইঘুররা তাদের পুরোনো পরিচয় ফিরে পায়।

ভাষাবিদ ও ইতিহাসবেত্তারা এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন যে ‘উইঘুর’ শব্দটি ‘উয়্যুঘুর’ শব্দ থেকে এসেছ। এর অর্থ সংঘবদ্ধ।

১৯৯১১ সালে মাঙ্কু সাম্রাজ্য উৎখাতের মাধ্যমে পূর্ব তুর্কিস্তানে চীনা শাসন চালু হয়েছে। কিন্তু স্বাধীনচেতা বীর উইঘুররা এই বৈদেশিক শাসনের সামনে মাথা নোয়ায়নি। এ কারণে ১৯৩৩ ও ১৯৪৪ সালে তারা দুবার চীনাদের সঙ্গে সাহসিকতার চরম রূপ দেখিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করে। কিন্তু ভাগ্য তাদের অনুকূলে ছিল না।

এ কারণে ১৯৪৯ সালে আবারও তারা চীনা কমিউনিস্টদের হাতে পরাজিত হয় আর জিনজিয়াং উইঘুর স্বায়ত্তশাসিত প্রদেশ গড়ে ওঠে। তখন সেখানে কমিউনিস্ট পার্টির গর্ভনর ছিলেন সাইফুদ্দিন আজিজি।

 

 

জিনজিয়াং চীনের অন্যতম সর্ববৃহৎ একটি অঞ্চল। এর আয়তন ১৬ লাখ ৪৬ হাজার ৪০০ বর্গকিলোমিটার। দেশটির উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত এ এলাকা আয়তনে চীনের প্রায় এক ষষ্ঠাংশ। এ প্রদেশের জনসংখ্যা ২ কোটি ২০ লাখের মতো। এর মধ্যে মুসলমান প্রায় ১ কোটি ২৬ লাখ। প্রায় ৫৮ শতাংশ মুসলিম।

মধ্যযুগে তাং সাম্রাজ্য দুর্বল হয়ে পড়ার পর থেকেই সেখানে ইসলাম ও আরবের প্রভাব বাড়তে থাকে। স্থানীয় উইঘুর জনগোষ্ঠীর বিপুলসংখ্যক লোক ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

 

 

উইঘুর বললেই আজকে মুসলিম জনগোষ্ঠী বোঝানো হয়। আর চীনা মুসলমানদে হুই বলা হয়। উইঘুরের বর্ণমালাও আরবি। উরুমকি বর্তমান জিনজিয়াংয়ের রাজধানী। জিনজিয়াং একটি প্রধান ফসল উৎপাদন কেন্দ্র। এখানে বিপুল পরিমাণ খনিজ ও তেলসম্পদ মজুদ রয়েছে।

১৮৮৪ সালে কিং রাজত্বের সময় জিনজিয়াং চীনের একটি প্রদেশ হয়। ১৯৪৯ সালে কমিউনিস্ট বিপ্লবের পর চীনা কমিউনিস্ট সেনারা জিনজিয়াংয়ে অভিযান চালায়। এর সূত্রে চীনের হান সামরিক গোষ্ঠী জিনজিয়াংয়ে অভিবাসী হয়েছে।

 

হান সাংস্কৃতিক আত্তীকরণের বিরুদ্ধে এবং সাংস্কৃতিক বিপ্লবের কারণে বহু মানুষ নির্যাতিত হয়। বিপুল সংখ্যক কাজাখ জনগোষ্ঠী পাশ^বর্তী কাজাখস্তানে পালিয়ে যান।

এরপর থেকে উইঘুর মুসলমানদের সঙ্গে চীনাা কর্তৃপক্ষের বিরোধ সৃষ্টি হয়। একসময় তা রূপ নেয় সংঘর্ষে। গত শতাব্দীর শেষে উইঘুর মুসলমানরা স্বাধীনতার দাবিতে সশস্ত্র আন্দোলন শুরু করে।

 

 

ফ্রিডম ওয়াচের মতে, চীন হচ্ছে পৃথিবীর অন্যতম ধর্মীয় নিপীড়ক দেশ। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা না থাকায় এসব নিপীড়নের গোঙানির শব্দ বিশ^বাসী খুব একটা জানতে পারে না। কালেভদ্রে কিছু জানতে পারা যায়।

উইঘুর মুসলমানদের বিরুদ্ধে বর্বরোচিত নীতির ব্যাপারে চীন বলে যে বিচ্ছিন্নতাবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও ধর্মীয় চরমপন্থা মোকাবিলা করার জন্য তারা নাকি নানা পলিসি নিতে বাধ্য হচ্ছে। কিন্তু দাড়ি রাখা, রমজান মাসে রোজা রাখা কী করে চরমপন্থা হয়, তা বোধগম্য হয় না বিশ্ববাসীর।

চীনের অর্থনীতির রমরমা অবস্থা এবং তাদের কাছ থেকে নানান সুবিধা পেয়ে বোবা হয়ে আছে অধিকাংশ মুসলিম দেশ। বুদ্ধিজীবীরাও কথা বলেন না। আসলে মুসলিমদের ব্যাপারে বরাবরই মুসলিম সুশীল সমাজ বা আমরা একরকম অন্ধ। এসব নিপীড়িত মুসলিম মানুষের কান্না তাদের কানে যায় না।

 

এই মুহুর্তে পড়া হচ্ছে

শেষ কবে প্রযোজককে ক্ষতির হিসাব দিয়েছেন অক্ষয় কুমার নিজেই হয়তো বলতে পারবেন না। টানা পাঁচ... আরও পড়ুন

উপহার দিয়ে আসছেন

বিশ্বের সর্বচেয়ে বড় বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যামাজান প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জেফ বেজোসের... আরও পড়ুন

সিটি নির্বাচনে রাজধানীর গাবতলীতে গণসংযোগের সময়ে হামলার অভিযোগ করে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়ে নির্বাচন কমিশন... আরও পড়ুন

দিয়ে নির্বাচন কমিশন

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে সশস্ত্রবাহিনীকে মাঠে নামাবে না নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গতকাল মঙ্গলবার... আরও পড়ুন

বৈঠক শেষে নির্বাচন

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচন অংশগ্রহনমূলক, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হবে... আরও পড়ুন

প্রকাশ করেছেন মার্কিন

চট্টগ্রাম-৮ আসনে ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটা পুনর্র্নিবাচনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ... আরও পড়ুন

আমীর খসরু

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার না করে... আরও পড়ুন

ব্যবহার না করে ব্যালট পেপারে ভোটগ্রহনের

আসন্ন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দিন ১ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনি এলাকার শিল্প কারখানা... আরও পড়ুন

নির্বাচন কমিশন (ইসি)

বিভিন্ন সংগঠনের দাবির মুখে অবশেষে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ৩০ জানুয়ারি পরিবর্তে... আরও পড়ুন

আগামী ১ ফেব্রয়ারি

সরস্বতী পূজা এবং ভোট নিয়ে যাতে কোন ধরণের সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি তৈরি না হয়-সেটি বিবেচনায় নিয়ে... আরও পড়ুন

  সাম্প্রতিক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।